মঙ্গলবার, জানুয়ারি ১৯
Shadow

তাঁকে ঘিরে স্বপ্ন দেখে বাংলাদেশ

এম. নজরুল ইসলাম :

এদেশের মানুষের আস্থার প্রতীক তিনি। বাংলাদেশ আজকের রাজনৈতিক ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের অগ্রযাত্রায় তাঁর অবদান অনস্বীকার্য। বাংলাদেশের ইতিবাচক পরিবর্তনের অগ্রনায়ক তিনি। স্বাভাবিকভাবেই, বলার অপেক্ষা রাখে না, তাঁকে ঘিরেই সুন্দর আগামীর স্বপ্ন দেখে বাংলাদেশ। আজ পেছন ফিরে তাকালে দেখতে পাই, তিন যুগ আগে জনক্যলাণের ব্রত সাধনার মন্ত্রে নতুন দীক্ষা নিয়ে তিনি পিতৃভূমিতে পা রেখেছিলেন। তাঁর আত্মার আত্মীয় বাংলার মানুষ হার্দিক উষ্ণতায় তাঁকে বরণ করে নিয়েছিল। আকাশ ভাঙ্গা বৃষ্টির মধ্যে তিনিও তো সেদিন ভেসে গিয়েছিলেন আবেগের অশ্রুতে। নিজেকে উজাড় করে দিয়ে তিনি আজ মুক্তিকামী মানুষের মুক্তির মূর্ত প্রতীক। নির্বাসিত জীবনের অবসান ঘটিয়ে দেশে পা রাখার পর দুর্গমপথ পাড়ি দিতে হয়েছে তাঁকে। কিন্তু ব্যক্তিগত চাওয়া-পাওয়ার উর্ধে উঠে দেশের মানুষের কল্যাণে নিজেকে নিবেদন করে তিনি পায়ে পায়ে মাড়িয়েছেন পথের পাথর। পাথেয় করেছেন আজীবনের দীক্ষা কল্যাণব্রত। ফলে কোনকিছুই তাঁর চলার পথ রুদ্ধ করতে পারেনি। ১৯৮১ সালে দেশে ফিরে আসার পর ১৯৮৬ সালের নির্বাচনে তিনি সংসদে প্রথমবারের মতো নির্বাচিত হন। বসেন বিরোধীদলীয় নেত্রীর আসনে। ১৯৮৮ সালে পদত্যাগ করেন, জনস্বার্থে। তারপর যুগপৎ আন্দোলন-সংগ্রাম। তাঁকে হত্যার চেষ্টা হয়েছে কয়েকবার-চট্টগ্রামে, কোটালিপাড়ায়। ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে গ্রেনেড হামলা করা হয়েছে। প্রতিবারই বাংলার মানুষের ভালবাসার কাছে পরাজিত হয়েছে শত্রু। তারপরও ষড়যন্ত্র কম হয়নি তাঁকে নিয়ে। ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই তাঁকে গ্রেফতার করাটাও ছিল গভীর এক ষড়যন্ত্র। ১৯৮১ সালে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হয়ে দেশে ফিরে আসার পর থেকে ১৯৮৩, ১৯৮৫, ১৯৯০ ও ২০০৭ সালে গ্রেফতার করা হয়েছে তাঁকে। তাঁর ক্লান্তিহীন পথরেখায় আজও কোন ছেদচিহ্ন পড়েনি। তিনি শেখ হাসিনা। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ কন্যা তিনি। বাংলাদেশের মানুষের আশা, ভরসা ও বিশ্বাসের কেন্দ্রে তিনি।

মানুষের ধর্ম পালন করতে গিয়ে আজ বাংলাদেশে লাখ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছেন শেখ হাসিনা। বিশ্বমানবতার এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। এবারের জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭২তম অধিবেশনে তাই সব আলো পড়েছিল বাংলাদেশের ওপর। অবশ্যই বিশ্বনেতাদের মনোযোগের কেন্দ্রে ছিলেন তিনি। জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের দেয়া বক্তৃতায়ও ফুটে উঠেছে তাঁর মানবিকতার পরিচয়। তিনি বলেছেন, আমার হƒদয় আজ দুঃখে ভারাক্রান্ত। কেননা আমার চোখে বারবার ভেসে উঠছে ক্ষুধার্ত, ভীত-সন্ত্রস্ত এবং নির্যাতিত রোহিঙ্গাদের মুখচ্ছবি। আমি মাত্র কয়েকদিন আগেই আমার দেশে আশ্রয় নেয়া কয়েক লাখ রোহিঙ্গার সঙ্গে দেখা করে এসেছি, যারা ‘জাতিগত নিধনে’র শিকার হয়ে আজ নিজ দেশ থেকে জোরপূর্বক বিতাড়িত। অথচ তারা হাজার বছরেরও অধিক সময় যাবত মিয়ানমারে বসবাস করে আসছেন। এদের দুঃখ-দুর্দশা আমি গভীরভাবে অনুধাবন করতে পারি।

জাতিসংঘে শেখ হাসিনা স্পষ্ট ভাষায় বলেছেন, ‘আমরা যুদ্ধ চাই না, শান্তি চাই। আমরা অর্থনৈতিক উন্নতি চাই, মানব ধ্বংস নয়, মানব কল্যাণ চাই।’

রোহিঙ্গা সঙ্কটের স্থায়ী সমাধানে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবও দিয়েছেন তিনি। তাঁর প্রস্তাবগুলো হচ্ছে, অনতিবিলম্বে এবং চিরতরে মিয়ানমারে সহিংসতা ও ‘জাতিগত নিধন’ নিঃশর্তে বন্ধ করা। অনতিবিলম্বে মিয়ানমারে জাতিসংঘের মহাসচিবের নিজস্ব একটি অনুসন্ধানী দল প্রেরণ করা। জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সকল সাধারণ নাগরিকের নিরাপত্তা বিধান করা এবং এ লক্ষ্যে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে সুরক্ষা বলয় গড়ে তোলা। রাখাইন রাজ্য হতে জোরপূর্বক বিতাড়িত সকল রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে তাদের নিজ ঘরবাড়িতে প্রত্যাবর্তন ও পুনর্বাসন নিশ্চিত করা। কোফি আনান কমিশনের সুপারিশমালার নিঃশর্ত, পূর্ণ এবং দ্রুত বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা।

এর আগে জাতিসংঘ সদর দফতরে ওআইসি কন্ট্যাক্ট গ্রুপের বৈঠকে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা এই ‘জাতিগত নির্মূল’ অভিযানের অবসান দেখতে চাই। আমাদের মুসলমান ভাইদের এই দুর্দশার অবসান চাই। এই সঙ্কটের সূচনা হয়েছে মিয়ানমারে এবং সেখানেই এর সমাধান হতে হবে। এখানেও ছয় দফা প্রস্তাব তুলে ধরেন তিনি। এগুলো হচ্ছে- এক. রোহিঙ্গা মুসলমানদের ওপর সব ধরনের নিপীড়ন এই মুহূর্তে বন্ধ করতে হবে। দুই. নিরপরাধ বেসামরিক জনগোষ্ঠী, বিশেষ করে নারী, শিশু ও বৃদ্ধদের জন্য মিয়ানমারের ভেতরে নিরাপদ এলাকা (সেইফ জোন) তৈরি করা যেতে পারে, যেখানে তাদের সুরক্ষা দেয়া হবে। তিন. বলপ্রয়োগের ফলে বাস্তুচ্যুত সব রোহিঙ্গা যেন নিরাপদে এবং মর্যাদার সঙ্গে মিয়ানমারে তাদের বাড়িতে ফিরতে পারে, সেই ব্যবস্থা করতে হবে। চার. রোহিঙ্গা সঙ্কট নিরসনে কোফি আনান কমিশনের পূর্ণাঙ্গ সুপারিশ অবিলম্বে নিঃশর্তভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে। পাঁচ. রোহিঙ্গাদের ‘বাঙালি’ হিসেবে চিহ্নিত করার যে রাষ্ট্রীয় প্রপাগান্ডা মিয়ানমার চালাচ্ছে, তা অবশ্যই বন্ধ করতে হবে। ছয়. রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে না ফেরা পর্যন্ত তাদের জরুরী মানবিক সহায়তা দেয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশকে সহযোগিতা করতে হবে ভ্রাতৃপ্রতিম মুসলিম দেশগুলোকে।

আবার বিশ্ব আসরে বাংলাদেশের এগিয়ে চলার কথা বলতেও ভোলেননি। উচ্চারণ করেছেন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা বাস্তবায়নে আমরা অঙ্গীকারবদ্ধ। এক্ষেত্রে আমাদের সরকার সমাজের সকলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার নীতি গ্রহণ করেছে। ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম-আয়ের এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশ হিসেবে রূপান্তরের যে রূপকল্প আমরা হাতে নিয়েছি, এসডিজি তারই পরিপূরক হিসেবে কাজ করছে।

মূলত এসডিজি গ্রহণের অনেক আগে থেকেই আমরা বেশকিছু কর্মসূচী এবং সামাজিক নীতি বাস্তবায়ন শুরু করেছি যা পরবর্তীকালে এসডিজিতেও প্রতিফলিত হয়েছে। এসব কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে : একটি বাড়ি একটি খামার, কমিউনিটি ক্লিনিক, আশ্রায়ণ প্রকল্প, ডিজিটাল বাংলাদেশ, শিক্ষা সহায়তা কর্মসূচী, নারীর ক্ষমতায়ন, সবার জন্য শিক্ষা, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী, পরিবেশ সংরক্ষণ এবং বিনিয়োগ ও উন্নয়ন।

এসডিজি অর্জনের ক্ষেত্রে আমাদের অগ্রগতি এবং অঙ্গীকারের বিষয়গুলো আমরা এ বছর জাতিসংঘে ‘ভলান্টারি ন্যাশনাল রিভিউ’-এর মাধ্যমে তুলে ধরেছি। একই সঙ্গে তিনি তুলে ধরেছেন বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতির কথাও। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বাংলাদেশের অর্থনীতির প্রবৃদ্ধির হার ছিল ৭ দশমিক দুই চার শতাংশ। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বর্তমানে ৩২.১ বিলিয়ন ডলার। দারিদ্র্যের হার ১৯৯১ সালের ৫৬.৭ শতাংশ থেকে কমে বর্তমানে ২৩.২ শতাংশ হয়েছে। মাথাপিছু আয় ২০০৫-০৬ অর্থবছরের ৫৪৩ মার্কিন ডলার থেকে বৃদ্ধি পেয়ে বর্তমানে ১ হাজার ৬০২ মার্কিন ডলারে দাঁড়িয়েছে। মানুষের গড় আয়ু ৭২ বছরে উন্নীত হয়েছে। তাঁর সরকার যে অন্তর্ভুক্তিমূলক প্রবৃদ্ধি, বিনিয়োগ আকৃষ্ট করা এবং সকলের জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ নিশ্চিত করতে সারাদেশে ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে, তা জানিয়েছেন বিশ্বকে।

পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তি চুক্তির আন্তর্জাতিক গুরুত্ব ও স্বীকৃতির চিহ্ন হিসেবে শেখ হাসিনা ১৯৯৯ সালে ২২ সেপ্টেম্বর ইউনেস্কো শান্তি পুরস্কার পান। কৃষিতে অসামান্য অবদানের জন্য শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক সেরেস পুরস্কারে ভূষিত হন। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অনেক অর্জন তাঁর। কিন্তু সবচেয়ে বড় অর্জন দেশের মানুষর আস্থা ও ভালবাসা। তিনি অর্জন করেছেন ইউএন উইমেনের ‘প্ল্যানেট ৫০-৫০ চ্যাম্পিয়ন’ পুরস্কার ও গ্লোবাল পার্টনারশিপ ফোরামের ‘এজেন্ট অব চেইঞ্জ অ্যাওয়ার্ড’। দুটি পুরস্কারে তিনি ভূষিত হয়েছেন নারীর ক্ষমতায়নে অবদানের জন্য।

২০১৫ সালে জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি মোকাবেলায় অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে পেয়েছেন ‘চ্যাম্পিয়ন অব দ্য আর্থ’ পুরস্কার। ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠন ও তথ্য প্রযুক্তির উন্নয়নে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে তাঁর অর্জন ‘আইটিইউ এ্যাওয়ার্ড’। রাজনীতিতে নারী পুরুষের বৈষম্য কমানোর ক্ষেত্রে দক্ষিণ ও দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ায় বিশেষ অবদানের জন্য পেয়েছেন ‘ওমেন ইন পার্লামেন্ট গ্লোবাল এ্যাওয়ার্ড’। ২০১৪ সালে নারী ও শিশু শিক্ষা ও উন্নয়নে বিশেষ অবদানের জন্য ইউনেস্কো তাঁকে শান্তিবৃক্ষ পদকে ভূষিত করে। ২০১৩ সালে খাদ্যনিরাপত্তা এবং ক্ষুধা ও দারিদ্র্য বিমোচনে বিশেষ অবদানের জন্য জাতিসংঘের ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর সাউথ সাউথ কো অপেরাশন তাঁকে ‘সাউথ সাউথ’ পুরস্কারে ভূষিত করে। বাংলাদেশের জন্য এমন অসংখ্য পুরস্কার ও সম্মান বয়ে এনেছেন তিনি।

আজ তাঁর ৭০তম জন্মদিনে তাঁকে আমাদের প্রণতি জানাই। দীর্ঘায়ু হোন তিনি। তাঁর হাত ধরে এগিয়ে যাক বাংলাদেশ।

লেখক : অস্ট্রিয়া প্রবাসী মানবাধিকারকর্মী

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.