মঙ্গলবার, এপ্রিল ২০
Shadow

রুপগঞ্জ থানার হত্যা ধর্ষন, মাদক মামলার আসামী প্রকাশ্যে

 

রুপগঞ্জ প্রতিনিধি :

নারায়নগঞ্জ জেলার রুপগঞ্জ থানাধীন বরপা এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী হত্যা, ধষন, মাদক মামলার ্এবং ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসামী রুপগঞ্জ থানা পুলিশের সামনে সিনা ফুলিয়ে ঘুরাঘুরি করছে আসামীরা। তাদের খুটির জোর কোথায়?। জানাযায়, রুপগঞ্জ বরপা এলাকার বাসিন্দা নুরুল ইসলামের ছেলে মোঃ আফসার উদ্দিন, মৃত মিছির আলীর ছেলে শওকত সাউদ এবং আফসার উদ্দিনের স্ত্রী মোসাঃ সাবিনা চৌধুরীর সহযোগীতায় বিদেশ পাঠাবার কথা বলে সকাল ১০ টায় সময় মোবাইলে ফোন করে তাদের বাড়ীতে একই এলাকার বাসিন্দা মোসাঃ মরিয়ম আক্তারকে ডেকে এনে জোর পৃর্বক পালাক্রর্মে ধর্ষন করেন উক্ত ব্যক্তিরা। গত ২৯ সেপ্টেম্বর ধর্ষিতা বাদী নারায়নগঞ্জ কোর্টে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুন্যালে একটি পিটিশন দায়ের করেন যার নং ২৫৮২/ ধারাঃ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আইন ৯ সংশোধনী ২০০৩) এর ৯(১)/৩০। শরিয়তপুর জেলার মৃত হাজী মোঃ সুরুজ মিয়ার মেয়ে মরিয়ম। বাদিনী মরিয়ম দারিদ্রে কারনে পেটের খিদা ও কিছুটা দরিদ্রতা দুর করার জন্য চাকুরী করার উদ্দেশ্যে গত ১৪/০৭/১৭ ইং তারিখে বাদিনীর এক আতী¡য়ের বাসায় উঠে। পরে বরপা বাস ষ্টেশনে বাজার করিতে আসলে ফলের দোকানে ১ নং বিবাদী সাথে পরিচয় হয়। পরিচয়ের এক পর্যায়ে বাদিনীর ফোন নাম্বার নেয় বিবাদী। হঠাৎ একদিন বাদিনীকে ১ নাম্বার আসামী ফোন করে দেখা করতে বলে। বাদিনী তার কথা মতে দেখা করলে বাদিনীকে বিবাদী বিদেশ যাওয়ার প্রস্তাব দেয়। পরে বাদিনী বিদেশ যেতে রাজি হয়। বিবাদী বাদিনীর কাছে বিদেশ যাওয়ার জন্য ৩০ হাজার টাকা দাবি করেন।বাদিনী তার গ্রামের বাড়ী থেকে সুদে টাকা এনে বিবাদীকে প্রদান করেন। পরবতীতে আবারো বাদিনীর কাছে আরো ২০ হাজার টাকা চায় বিবাদী। বাদিনী নিরুপায় হইয়া আরারো ২০ হাজার টাকা এনে দেয়। পরে বিবাদীদের বিদেশ পাঠানোর জন্য বাদিনী চাপ সৃষ্টি করলে বাদিনীকে বিবাদীগন হুমকি দিতে থাকে। বাদিনী আইনের ব্যবস্থা নেবে বলে হুমকি দিলে বিবাদীগন বাদিনীকে ফোন করে চৌধুরী ভিলার বাড়ীতে আসতে বলে। বাদিনী তাদের বাড়ী গেলে আফসার উদ্দিন, শওকত সাউদ ঘরের দরজা বন্ধ করে জোর পৃর্বক ধর্ষন করে। এক পর্যায়ে রক্তাক্ত বাদিনী অজ্ঞান হয়ে যায়। পরে আসামীরা অজ্ঞান বাদিনীকে বায়জিত সাউদের গুদামের উত্তর পাশে খালি জায়গায় ফালাইয়া যায়। এলাকাবাসী দেখতে পেয়ে বাদিনীকে উদ্ধার করে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা করান। তার পর বাদিনী কোর্টে একটি ধর্ষন মামলা করেন। রুপগঞ্জ এলাকার ত্রাস মিছির আলীর ছেলে শওকত সাউদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা রয়েছে রুপগঞ্জ থানায় যার নং ১০ তাং ০৭/০৬/১৪ইং। গত ৬ ই জুন ২০১৬ ইং তারিখে আনুমানিক রাত ৯ টার রুপগঞ্জ এলাকার ব্যবসায়ী আক্তার হোসেনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। দীর্ঘদিন নিহত আক্তারের সাথে বিরোধ ছিলো শওকত সাউদের। পরে নিহতের স্ত্রী বাদী হয়ে রুপগঞ্জ থানায় মামলা করেন। এ হত্যা মামলার ২ নাম্বার আসামী শওকত সাউদ। এদিকে শওকত সাউদের বিরুদ্ধে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি মাদক মামলাও রয়েছে। সিদ্ধিরগঞ্জ সানারপাড় এলাকায় সিদ্ধিরগঞ্জ থানা পুলিশ অভিযান চালালে ২ মাদক ব্যবসায়ী পুলিশে খবর টের পেয়ে পালানোর সময়ে এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে। উক্ত মাদক ব্যবসায়ী পুলিশকে আরেকজন মাদক ব্যবসায়ীর পাটনার শওকত সাউদের কথা বলে। পরে পুলিশ ২ জনকে আসামী করে মাদক আইনে মামলা দায়ের করেন যার নং ৩৩ তাং ০৪/০৭/১৭ই। গত ০৬ আগস্টে বায়েজিদ সাউদ রুপগঞ্জ থানায় শওকত সাউদ এবং তার স্ত্রী রুপার বিরুদ্ধে হামলার ঘটনায় মামলা করেন যার নং ১৫ তাং ০৬/০৮/১৭ ইং। এতগুলোর মামলার আসামী প্রকাশ্যে ঘুরাঘুরি করায় এলাকায় আতংক বিরাজ করছে। তাই উক্ত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারের দাবি জানান এলাকাবাসী।

Leave a Reply

Your email address will not be published.