তারেকের ইন্ধনে প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠ নকল করে বেনামী ফেসবুক পেজের মিথ্যাচার

প্রাইম ডেস্ক :

দশ দিনের সরকারি সফরে ব্রিটেনের রাজধানী লন্ডনে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর এই সুযোগে ভয়েজ চেঞ্জার নামক সফটওয়ারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠ নকল করে সরকারের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার ছড়াতে তৎপর হয়েছে দেশ ধ্বংসকারী তারেক রহমানের নেতৃত্বাধীন সাইবার চক্র।

তারেক রহমানের সাইবার চক্রটি প্রধানমন্ত্রীর কণ্ঠ নকল করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছেড়ে দেয়া ভয়েজে শোনা যাচ্ছে, ইংল্যান্ডের কোনো হোটেলই নাকি আওয়ামী লীগ সরকারের কাউকে বুকিং দিতে চায় না। যা ছিলো নিতান্তই মিথ্যাচার। কারণ লন্ডনে প্রধানমন্ত্রীসহ তার সফর সঙ্গী রয়েছেন সে দেশের সরকারি প্রটোকলে। যেখানে পয়লা মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা লন্ডনে যাবেন তা, এক মাস আগেই নির্ধারিত হয়েছে। আর সেই অনুসারে লন্ডন সরকার প্রধানমন্ত্রীসহ তার সফর সঙ্গীদের দেখভাল করার দায়িত্ব নিয়েছে। ফলে হোটেল বুকিং এর বিষয়টি সম্পূর্ণ বানোয়াট।

এরপর বানোয়াট সেই ভয়েজ রেকর্ডে শোনা যায়, প্রধানমন্ত্রী নাকি বলছেন, তারেক রহমান যদি বেশি বাড়াবাড়ি করে তার মা জীবনেও জেল থেকে বের হবে না। এটিও ছিলো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর মিথ্যাচার। কারণ আমরা সকলেই জানি দুর্নীতির দায়ে আদালতের নির্দেশে কারাবরণ করছেন খালেদা জিয়া। এখানে সরকারের কোনো হাত নেই। শুধু মাত্র সরকারকে দেশে ও দেশের বাইরে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলার জন্যই এমন মিথ্যাচার করা হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে কথা হয় যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফের সঙ্গে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী লন্ডনে সরকারি প্রটোকলে রয়েছেন। বর্তমানে তিনি যুক্তরাজ্যের অতিথি হওয়ায় তার দেখভাল করছে ব্রিটিশ সরকার। এছাড়া তার বোন শেখ রেহানার পরিবার লন্ডনেই থাকেন। প্রধানমন্ত্রী সরকারি কাজ শেষে শেখ রেহানার সঙ্গে সময় কাটাবেন, এটাই স্বাভাবিক। সুতরাং এখানে হোটেল কোন ফ্যাক্টর নয়। মূলত মিথ্যাচার করে আওয়ামী লীগ সরকারকে বদনাম করতেই এসব করছে তারেক গং।

এদিকে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে মারিয়া হয়ে উঠেছেন তারেক রহমান। তারেক রহমান চান যে কোনো কিছুর বিনিময় হলেও খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে বের করতে।

যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক বলেন, বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের বাইরে আছেন। আর এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে দেশে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির পায়তারা করছেন তারেক রহমান। দেশ-বিদেশে প্রধানমন্ত্রীকে বিব্রত করতে মিথ্যাচার করছেন তারেক। এ বিষয়ে আমরা তারেক রহমানের বিরুদ্ধে সাইবার ক্রাইম, প্রতারণা মামলা, মানহানি মামলা এবং আইসিটি আইনে মামলা করবো।