বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১
Shadow

পাপন বিসিবিতে অপেক্ষায়, গুলশানে ক্রিকেটাররা

নিজস্ব প্রতিবেদক :

আন্দোলনরত ক্রিকেটাররা নিজেদের মধ্যে বুধবার সন্ধ্যা ৬টায় বৈঠক শেষে রাজধানী গুলশানের সিক্স সিজন হোটেলে সংবাদ সম্মেলনের ডাক দিয়েছেন। এদিকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান বলেছেন, আলোচনার জন্য তারা প্রস্তুত হলেও ধর্মঘটী ক্রিকেটারদের সাড়া পাচ্ছেন না। বিসিবিতে অপেক্ষমাণ বোর্ড কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসার কথা ছিল আন্দোলনরত ক্রিকেটারদের। তারা বোর্ডের সঙ্গে আজও আলোচনায় বসবেন না হয়তো। খুব সম্ভবত, সংবাদ সম্মেলনে আগের ১১ দফা দাবির সঙ্গে নতুন কোনো শর্ত জুড়ে দিতে পারেন আজ তারা বলে জানা যায়। এর কারণ একটাই, মঙ্গলবার বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন যে সুরে কথা বলেছেন, সেটা মোটেও পছন্দ হয়নি আন্দোলনরত ক্রিকেটারদের। কারণ, বিসিবি সভাপতি সেখানে জানিয়েছেন, এই আন্দোলনে ষড়যন্ত্রের গন্ধ পাচ্ছেন তিনি। ষড়যন্ত্র করে ক্রিকেটাররা বাংলাদেশের ক্রিকেটের এবং দেশের ক্রিকেটের ইমেজ নষ্ট করে দিয়েছে। সভাপতি হুমকিও দিয়েছেন, ষড়যন্ত্র সবাই করছে না। দু’একজন করছে। তাদের খুঁজে বের করা হবে। শুধু তাই নয়, সংবাদ সম্মেলনে বিসিবি সভাপতি ক্রিকেটারদের অনেকের ব্যক্তিগত নানা বিষয়ও তুলে নিয়ে আসেন। ক্রিকেটাররা মনে করছেন, এগুলো তাদের জন্য সম্মানহানির। সকাল থেকেই বিসিবি এবং ক্রিকেটারদের মধ্যে সমঝোতার গুঞ্জন ছিল। প্রধানমন্ত্রী তার দফতরে ডেকে নেন ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাকে। দায়িত্ব দিয়েছেন সমাঝোতার। ভারত সফরের আগে ক্রিকেটারদের আকস্মিক ধর্মঘট নিয়ে ব্যাপক আলোচনার মধ্যে বুধবার দুপুরের পর গণভবনে গিয়ে শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করেন সংসদ সদস্য নাজমুল। তিনি যখন প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে ঢোকেন তখন তা সঙ্গে বিসিবি পরিচালক ও ক্রিকেটারস ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশেন অব বাংলাদেশে (কোয়াব) সভাপতি নাইমুর রহমান দুর্জয়ও ছিলেন। বিকালে গণভবন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় নাজমুল হাসান বলেন, “আমরা খেলোয়াড়দের সব দাবি দাওয়া মেনে নেয়ার জন্য প্রস্তুত আছি। কিন্তু তারা ফোন ধরছে না। দুপুরের পর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন এবং বোর্ড পরিচালক নাঈমুর রহমান দুর্জয়। যে কারণে সন্ধ্যা নাগাদ বোর্ড এবং ক্রিকেটাররা বসে একটা সমঝোতা হতে পারে- এমন একটা আভাস ছড়িয়ে পড়েছিল। তবে বোর্ড কর্মকর্তাদের সঙ্গে ক্রিকেটারদের আলোচনা হচ্ছে না।