তবে কি ভারত সফরে যাচ্ছেন না সাকিব!

প্রাইম খেলাধুলা  :

দেশসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ক্রিকেটারদের ধর্মঘট হয়েছিল তারই নেতৃত্বে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সঙ্গে সমঝোতার পর ক্রিকেটাররা মাঠে ফিরেছেন। মাঝে আবার বিসিবিকে না জানিয়ে একটি টেলিকম কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি করেছেন সাকিব। এনিয়ে সাকিবের ওর বেজায় নাখোশ ক্রিকেট বোর্ড। জাতীয় ক্রিকেট লীগ (এনসিএল) এবং ভারত সফর সামনে রেখে প্রস্তুতি ক্যাম্প চলছে। কিন্তু সাকিবকে এখনো মাঠে দেখা যায়নি। প্রস্তুতি ম্যাচও হচ্ছে।
অনুশীলন ম্যাচ কোথাও নেই সাকিব। কী রহস্য? এসবের ভেতর বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন দেশের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে সাক্ষাতকারে ইঙ্গিত দিয়েছেন, ভারত সফর মিস করতে পারেন সাকিব। তামিম ইকবাল ইতিমধ্যেই ছিটকে গেছেন ইনজুরির কারণে। এবার টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিবও যদি না খেলেন তবে সেটি নিশ্চিতভাবেই বাংলাদেশের জন্য খারাপ ফল বয়ে আনবে।

সাকিব কেন মিস করবেন ভারত সফর? বিসিবি কি কোনো কারণে তাকে শাস্তি দিচ্ছে? আন্দোলন থেমে যাওয়ার পরই অন্য একটি কারণে আলোচনায় আসেন সাকিব। বিসিবির দাবি করে, তাদের চুক্তির ধারা ভঙ্গ করেছেন এই অলরাউন্ডার। বোর্ডের কাছ থেকে অনাপত্তিপত্র না নিয়েই দেশের টেলিকম কোম্পানি গ্রামীণফোনের দূত হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন সাকিব। এ নিয়ে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন গত ২৬শে অক্টোবর সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন, ‘আমাদের আইন অনুয়ায়ী সাকিব এমন চুক্তি কোনোভাবেই করতে পারে না, করার কথাও না।

এটি টেলিকম কোম্পানি জানে, আবার প্লেয়ারও জানে। ওদের সঙ্গে আমাদের চুক্তিও হয়েছে সেই ভাবেই। তবে সাকিব কেন এটি করলো তার জন্য আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দিতে হবে। সে জন্যই ওকে চিঠি দেয়ার বিষয়টি ঠিক করেছি। আবারো বলতে চাই, এমন চুক্তি সে কোনোভাবেই করতে পারে না। এটি সম্পূর্ণ বেআইনি।’ এরই মধ্যে সাকিবকে কারণ দর্শানোর চিঠি দিয়েছে বিসিবি। সাকিবও চিঠির জবাব দেয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে। এই চিঠি চালাচালির মাঝে সাকিবের অনুপস্থিতিও নানা প্রশ্নের জন্ম দিচ্ছে। তবে কি সাকিবকে শাস্তি দিয়েই দিয়েছে বিসিবি?