শুক্রবার, জানুয়ারি ১৫
Shadow

গফরগাঁও বাজারের ঝুঁকিপূর্ণ তোরণ দুর্ঘটনার আশঙ্কা, পুনঃনির্মাণ জরুরি

আ.আজিজ :
ময়মনসিংহের গফরগাঁও বাজারে দীর্ঘদিনের পুরনো ও ঝুঁকিপূর্ণ তোরণটি ভেঙ্গে পড়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। তোরণটি একদিকে হেলে পড়েছে। যে কোনো সময় ধসে পড়তে পারে। ফলে আতঙ্ক নিয়ে চলাচল করছে বাজারে ব্যবসায়ীসহ সর্বস্তরের মানুষ।
জানা যায়, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর সদস্যরা ১৭ এপ্রিল দুপুরে বোমাবর্ষণ করে জনবহুল গফরগাঁও বাজারে। এতে বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আব্দুল বেপারীসহ শত শত মানুষ হতাহত হন। জীবিতরা প্রাণ নিয়ে ছুটলো নিরাপদ আশ্রয়ে ব্রহ্মপুত্র নদের দিকে। স্বাধীনতার পর আওয়ামীলীগ সংসদ সদস্য আবুল হাশেম ১৯৭২ সালে ব্যবসায়ীদের আহবানে সাড়া দিয়ে সেইদিনের ঘটনায় বীরত্বপূর্ণ আত্মত্যাগের জন্য গফরগাঁও মধ্যবাজারের প্রবেশ পথে শহীদ আব্দুল বেপারীর স্মৃতি রক্ষার্থে এই তোরণটি নির্মাণ করেন। পরে একই সালে তৎকালীন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের শিল্পমন্ত্রী সৈয়দ নজরুল ইসলাম এই তোরণটি উদ্বোধন করেন। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না করায় ও চলাচলরত যানবাহনের ধাক্কায় তোরণটির বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দেয়। খসে পড়ে এর পলেস্তরা। স¤প্রতি তোরণটির ডান পাশের নিচের অংশ ভেঙে গিয়ে উত্তর দিকে অনেকটা হেলে পাশের দোকানের চালায় আটকে আছে। আতঙ্ক আর উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা নিয়ে প্রতিদিন বাজারের আসা হাজারো মানুষ তোরণটির নিচ দিয়ে চলাচল করছে। যে কোনো সময় তোরণটি ধসে ঘটতে পারে দুর্ঘটনা। তাই জরুরি ভিত্তিতে এটি ভেঙে ফেলে পুনরায় নির্মাণ করা প্রয়োজন।
এ ব্যাপারে শহীদ আব্দুল বেপারীর ছেলে, গফরগাঁও বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো. আনছারুল হক মনির বলেন, দীর্ঘদিনের পুরনো ও ঝুঁকিপূর্ণ তোরণটি পুনঃ নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের সুদৃষ্টি আর্কষণ করছি।
গফরগাঁও মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার সিরাজুল হক বলেন, সংস্কারের অভাবে শহীদ আব্দুল বেপারীর নামে নির্মিত তোরণটির অবকাঠামো দুর্বল হয়ে পড়েছে। শহীদ তোরণটি পুনঃনির্মাণের জন্য মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতি দাবি জানাচ্ছি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মাহবুব উর রহমানের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, ‘পৌর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।