শনিবার, জানুয়ারি ১৬
Shadow

।জামায়াতের নতুন নেতাকে শুভেচ্ছা জানায়নি বিএনপি, চূড়ান্ত বিচ্ছেদের শঙ্কা!

নিজস্ব প্রতিবেদক :

নিবন্ধন হারিয়ে দিশেহারা জামায়াত নতুন করে ঘুরে দাঁড়াতে সব রকম প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। দীর্ঘদিনের রাজনৈতিক মিত্র বিএনপি মুখ ফিরিয়ে নিলেও নিজেদের রাজনৈতিক কার্যক্রম বন্ধ করেছি যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত দলটি। এরই মধ্যে ডা. শফিকুর রহমানকে নতুন আমির হিসেবে নির্বাচিত করেছেন সংগঠনটির সদস্যরা।

জানা গেছে, শত-প্রতিকূলতার মধ্যেও জামায়াত নতুন নেতৃত্ব বাছাই করলেও বিএনপির তরফ থেকে কোন শুভেচ্ছা বা শুভ কামনা পায়নি সংগঠনটি। এমনকি ডা. শফিকুর রহমানকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ফোন করেননি বিএনপির কোন নেতা। সরকারের রোষানল থেকে বাঁচতে এবং ড. কামালদের প্ররোচনায় বিএনপি কি সত্যি জামায়াতকে ত্যাগ করলো কিনা, সেটি নিয়েও জামায়াতের অভ্যন্তরে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা।

জামায়াতের নতুন নেতৃত্ব বাছাইয়ের পরও বিএনপির তরফ থেকে কোন বাণী বা শুভেচ্ছা না দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে দলটির কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির মিয়া গোলাম পরওয়ার বলেন, জামায়াতকে নিয়ে বিএনপির এই লুকোচুরি খেলা নতুন কিছু নয়। রাজপথে পেশিশক্তির প্রয়োজন হলে জামায়াতের কথা স্মরণ করেন বিএনপির নেতারা। আর প্রয়োজন ফুরিয়ে গেলে আমাদের সাথে কৌশলে দূরত্ব বজায় রেখে চলেন মির্জা ফখরুলরা। এটি একধরণের রাজনৈতিক প্রতারণা। তবে সবচেয়ে দুঃখজনক বিষয় হলো, জামায়াতের নতুন নেতৃত্বকে এখন পর্যন্ত শুভেচ্ছা জানায়নি বিএনপি। আমাদের নতুন কমিটি নিয়ে তাদের কোন আগ্রহ দেখছি না।

তিনি আরো বলেন, ঐক্যফ্রন্টের বুদ্ধিতে চলা বিএনপি আজ তার পুরনো বন্ধদের অবজ্ঞা-অবহেলা করছে। সত্যি বলতে, জামায়াতকে ছাড়তে বিএনপির কান ভরেছেন ড. কামাল এবং সেই ষড়যন্ত্রে সফল হয়েছেন তিনি। তবে জামায়াত কিন্তু ক্ষতিগ্রস্ত হয়নি বরং বিএনপির রাজনৈতিক শক্তি কমেছে ড. কামালের কুপরামর্শ মেনে চলায়। জামায়াত একাই রাজপথে লড়াই করবে। বিএনপির মতো লোভী ও প্রতারকদের দলের সাথে আর পথ চলবে না জামায়াত।

অন্যদিকে জামায়াতের নতুন নেতৃত্বকে শুভেচ্ছা না জানানোর বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বলেন, দেখুন-রাজনীতি হলো কৌশলী খেলা। জামায়াতকে নিয়ে যে দূরত্ব তৈরি হয়েছে, তার জন্য কিন্তু বিএনপি দায়ী নয়। রাজনীতির প্রয়োজনে শত্রু বন্ধু হয় আবার বন্ধু অনেক সময় শত্রুতে পরিণত হয়। এছাড়া জামায়াত ইস্যুতে লন্ডন থেকে বিশেষ নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তাই জামায়াতের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে আমরা মাথা ঘামাতে চাই না। জামায়াতকে বিএনপির রাজনৈতিক পরিস্থিতি বুঝতে হবে। সময় হলে আবার সব ঠিক হয়ে যাবে।