বুধবার, জানুয়ারি ২০
Shadow

আর্জেন্টিনার প্রেসিডেন্টকেও ছাড়লেন না ম্যারাডোনা!

প্রাইম আন্তর্জাতিক :

আর্জেন্টিনার ৮৬ বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক দিয়াগো ম্যারাডোনার সোজাসাপটা কথা বলার জুড়ি সবারই জানা। নিজের কাছে কারো চলাফেরা, কর্মকাণ্ড দৃষ্টিকটু মনে হলে তাকে আক্রমণ করতে বিন্দুমাত্র কুণ্ঠাবোধ করেন না তিনি। আর এবার তার সমালোচনার শিকার হলেন আর্জেন্টিনা প্রেসিডেন্ট মাউরিসিও ম্যাক্রি।

দেশটির সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর ব্যক্তিকে সরাসরি কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছেন ফুটবল ইশ্বর। তার কারণে দেশ ধ্বংসের দিকে ধাবিত হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন ।

ফুটবলের সঙ্গে গভীর মিতালি ছিল ম্যাক্রির। ম্যারাডোনার স্বর্ণযুগে বোকা জুনিয়র্সের প্রেসিডেন্ট ছিলেন তিনি। সেই সূত্রে দীর্ঘদিন ধরে আর্জেন্টিনার সর্বোচ্চ নাগরিককে চেনেন ফুটবলের প্রথম জাদুকর। সম্পর্কটাও মধুর ছিল তাদের। তবে সাম্প্রতিক সময়ে দুজনের সম্পর্কটা নাকি দা-কুমড়ার মতো।

ভেনেজুয়েলা টেলিভিশনকে দেয়া ম্যারাডোনার ভাষ্যতেও তা স্পষ্ট হয়ে উঠল। শতাব্দীর সেরা গোলদাতা বলেন, ‌‘ম্যাক্রি নিজেও জানে না কতটা নিকৃষ্ট সে। ও এতটাই নোংরা যে তা ভাষায় বর্ণনা করা যাবে না। এ ব্যক্তি দেশটাকে ধ্বংসের দিকে ধাবিত করছে।’

ম্যাক্রিকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করায় আর্জেন্টাইনদের একহাত নিয়েছেন ম্যারাডোনা। তিনি বলেন, ‘আমি বুঝে উঠতে পারি না; কোন যুক্তিতে তাকে ভোট দিয়েছেন দেশের জনগণ। আমরা নিজের পায়ে নিজেই কুড়াল মেরেছি। এক দুর্নীতিগ্রস্ত পরিবারে তার জন্ম। সে অবৈধ পথে অর্থ উপার্জনে অভ্যস্ত। সেখানে আমরা কষ্টার্জিত উপার্জনে জীবিকা নির্বাহ করি।’

ম্যারাডোনার রোষানল থেকে পরিত্রাণ পাননি ম্যাক্রির বাবাও। তার দাবি, আর্জেন্টিনার বর্তমান প্রেসিডেন্টের বাবা ঋণগ্রস্ত। তার নামে মিলিয়ন ডলারের ঋণ ছিল। আমার সন্দেহ আছে, তিনি আদৌ সেই অর্থ শোধ করেছিলেন কি না?

Leave a Reply

Your email address will not be published.