শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ২৬
Shadow

শেষ মুহূর্তের গোলে রাশিয়ার বিপক্ষে জয় আর্জেন্টিনার

প্রাইম খেলাধুলা  :

রাশিয়ায় বিশ্বকাপ শুরুর প্রাক প্রস্তুতি ম্যাচ শুরুর আগে অনেকেই মনে করেছিল রাশিয়ার বিপক্ষে বড় ব্যবধানে জিতবে মেসির আর্জেন্টিনা। মস্কোতে যেভাবে রুশদের রক্ষণভাগে হামলে পড়েছিল দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা, তাতে বড় জয় পেতেই পারতো তারা।

খেলার শুরু থেকে অধিকাংশ সময় বল দখলে রেখে একের পর এক আক্রমণ করেও গোলের দেখা পাচ্ছিল না মেসির আর্জেন্টিনা। সুযোগ নষ্টের সঙ্গে স্বাগতিক গোলরক্ষক ইগোর আকিনফিভের দুর্দান্ত কিপিংয়ে আর্জেন্টিনাকে রুখেই দিয়েছিল রুশরা। কিন্তু সার্জিও আগুয়েরো খেলা শেষের চার মিনিট আগে গোল করে বাঁচান দলকে।

বিশ্বকাপ নিশ্চিতের পর বেশ আগেভাগে প্রস্তুতি শুরু করে আর্জেন্টিনা। যা মূলত শুরু হয় শনিবার (১১ নভেম্বর) মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে। বিশ্বকাপের ৭ মাস বাকি থাকলেও আয়োজক রাশিয়ার বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ ছিল খুব গুরুত্বপূর্ণ। যার জন্য এক সপ্তাহ আগেই রাশিয়া পৌঁছায় লিওনেল মেসিরা।

ইনজুরির কারণে মাউরো ইকার্দি সরে দাঁড়ানোয় আক্রমণভাগে মেসি ও সালভিওর সঙ্গে জায়গা পান আগুয়েরো। সাম্পাওলির অধীনে প্রথমবার একাদশে জায়গা পেয়েই কাটালেন জাতীয় দলের জার্সিতে গোলখরা। ২০১৬ সালের জুনের পর প্রথম গোল করেন ম্যানসিটির শীর্ষ গোলদাতা। এদিন আর্জেন্টিনাকে ৩-৩-৩-১ ফরমেশনে খেলান জর্জ সাম্পাওলি।
ম্যাচের ২১তম মিনিটে ডি মারিয়ার জোরালো শট রুখে দেন রাশিয়ার গোলরক্ষক।

২৪ মিনিটের মাথায় আগুয়েরোকে হতাশ হতে হয়। ৩৬ মিনিটের মাথায় মেসির বাড়িয়ে দেওয়া বল সুযোগের অপেক্ষায় থাকা ডি মারিয়া পেলেও পিএসজি তারকা আর্জেন্টিনাকে হতাশায় ডুবান। পরের মিনিটেই আগুয়েরোর আরেকটি প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়।

বিরতির ঠিক আগে এই সহজ সুযোগ হারান আগুয়েরো। ডি-বক্সের মধ্যে থেকে আগুয়েরোর ভলি কর্নারের বিনিময়ে ঠেকিয়ে দেন রুশ গোলরক্ষক আকিনফিভ। বিরতির আগে কোনো দলই গোলের দেখা পায়নি। ম্যাচের নিয়ন্ত্রণে এগিয়ে থাকা আর্জেন্টিনা বলের দখলেও ছিল এগিয়ে। বিরতির আগে আর্জেন্টিনার দখলে ছিল ৭৭ শতাংশ বল। মেসিদের ৪৪৫ পাসের বিপরীতে রুশরা ১৩৩ পাসে প্রথমার্ধ শেষ করে।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে মেসিই প্রথম গোল পেতে পারতেন। কিন্তু গোল লাইনের মুখ থেকে প্রতিহত হন বার্সেলোনা ফরোয়ার্ড। রুশ গোলরক্ষক আকিনফিভ দুর্দান্ত নৈপুণ্যে দুই অর্ধে ঠেকিয়েছেন আর্জেন্টিনার পাঁচ থেকে ছয়টি আক্রমণ। ম্যাচের ৬৫ মিনিটে গোলের সুযোগ নষ্ট করেন ওটামেন্ডি। দুই মিনিট পর ডি মারিয়া জোরালো শট নিলেও তা লুফে নেন রাশিয়ার গোলরক্ষ।

সাম্পাওলির শিষ্যরা সময়মতো শট না নেয়ায় কয়েকটি সুযোগ হারায়। বড় ব্যবধানে জয় হাতছাড়া হয় সুযোগ মিসের কারণে। ৮৬ মিনিটে আর্জেন্টিনার হয়ে গোল করেন আগুয়েরো। মেসির বাড়ানো বলে ডান দিক থেকে ডি মারিয়ার ক্রসে আগুয়েরোর শট ঠেকিয়ে দিয়েছিলেন এক ডিফেন্ডার। ফিরতি হেডে গোল নিশ্চিত করেন ম্যানসিটির এই স্ট্রাইকার। পরের মিনিটেই আগুয়েরোকে তুলে নিয়ে সাম্পাওলি মাঠে পাঠান পাওলো দিবালাকে।

বাকি সময়ে স্কোরের কোনো পরিবর্তন না হলে ১-০ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে আর্জেন্টিনা। মঙ্গলবার (১৪ নভেম্বর) ক্রাসনোদারে নাইজেরিয়ার বিপক্ষে রাশিয়াতে শেষ প্রীতি ম্যাচ খেলবে আর্জেন্টিনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.