বুধবার, জানুয়ারি ২৭
Shadow

নরসিংদী জেলার পৌরসভায় পূর্ণ দিবস কর্মবিরতী পালন

নরসিংদী প্রতিনিধি :
সরকারী কোষাগার হতে বেতন-ভাতা ও পেনশন সহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা প্রদানের দাবিতে বাংলাদেশ পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশনের কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে দেশের ৩২৭ টি পৌরসভার ন্যায় নরসিংদী জেলার নরসিংদী, মাধবদী, ঘোড়াশাল, মনোহরদী ও রায়পুরা পৌরসভা ১৩ই নভেম্বর সোমবার, সকাল ৯.০০ টা বিকাল ৫.০০ পর্যন্ত পূর্ণ দিবস কর্মবিরতী পালন করা হয়েছে। কর্ম বিরতীতে কনজারভেন্সী সেবা ছাড়া সমস্ত নাগরিক সেবা প্রদান বন্ধ থাকে। পূর্ণ দিবস কর্মবিরতীতে নরসিংদী পৌরসভার মেয়র কামরুজ্জামান কামরুল, মাধবদী পৌরসভার মেয়র হাজী মোঃ মোশাররফ হোসেনসহ সকল মেয়ররাই একাত্বতা ঘোষনা করে তাদের এ দাবীর প্রতি নিজেদের সমর্থন প্রদান করেন এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দুপুরে আপ্যায়ন করেন। কর্মবিরতী পালন শেষে কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ তাদের বক্তব্যে বলেন- গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মহান সংবিধানের ৫৯(১) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী স্থানীয় সরকার (পৌরসভা) আইন ২০০৯ এর আওতায় গঠিত প্রতিটি পৌরসভা একটি প্রশাসনিক ইউনিট হিসেবে গণ্য। যা আইনের ৫ ধারায় স্বীকৃত এবং সংবিধানের ৫৯(২) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী প্রত্যেকটি পৌরসভা জনসেবা ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন সর্ম্পকৃত পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত। সে মোতাবেক নগরায়ন সৃষ্টির উষালগ্ন থেকে পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ পৌরবাসীর জন্ম হতে মৃত্যু পর্যন্ত সেবা প্রদান করে আসছে। স্থানীয় সরকার বিভাগের আওতাধীন অন্যান্য প্রতিষ্ঠান যেমন- স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, জাতীয় স্থানীয় সরকার ইনিষ্টিটিউট সহ অনেক প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ সরকারের রাজস্ব তহবিল হতে বেতন-ভাতাদি ও পেনশন সুবিধা পেয়ে থাকেন। অথচ জনসেবক (পাবলিক সার্ভেন্ট) হওয়া সত্তে¡ও স্থানীয় সরকারের মূল প্রতিষ্ঠান পৌরসভায় কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ এ সুবিধা প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত। ১৯৭২ সালে সরকারী কর্মচারীদের সাথে পৌরসভা তথা নগরায়নের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণের বেতন বৈষম্য ছিল। যা ঐ সময়ে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তা দূর করে সরকারী কর্মচারীদের ন্যায় পৌরসভার কর্মচারীদের একই বেতন-ভাতা সুবিধা প্রবর্তন করেন। আজ পরিতাপের সাথে বলতে হচ্ছে দেশের বিভিন্ন পৌরসভায় কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ২ থেকে ৫২ মাস বেতন না পেয়ে অর্ধাহারে, অনাহারে জীবন-যাপন করছেন। অবসরে যাওয়ারপর পেনশন পাচ্ছেন না। পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ডিসেম্বর বিজয় মাসের মধ্যে রাষ্ট্রীয় কোষাগার হতে বেতন-ভাতা প্রদানের ঘোষনা দেওয়ার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষন করেন। মাধবদীতে মাধবদী পৌরসভার নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মনিরুজ্জামান এর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন পৌরসভার সচিব কাজী মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল, উপ-সহকারী প্রকৌশলী রিতেশ চন্দ্র পোদ্দার, কর-নির্ধারক মোঃ আতাউর রহমান, সহকারী কর আদায়কারী মোঃ হানিফ, প্রধান সহকারী (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ বজলুর রহমান। উপস্থিত ছিলেন সহকারী প্রকৌশলী মোঃ আমিনুল ইসলাম, উপ-সহকারী প্রকৌশলী জনাব মোঃ মহিউদ্দিন, প্রশাসনিক কর্মকর্তা মোঃ আরিফ আকন্দ, হিসাব রক্ষক মোঃ পনির হোসেন মোল্লা, বাজার পরিদর্শক চন্দন কুমার দে, লাইসেন্স পরিদর্শক মোঃ সফিকুর রহমান, ষ্টোর কিপার রহিমা বেগম, স্যানেটারী ইন্সপেক্টর মোসাঃ খোদেজা বেগম, সহকারী কর আদায়কারী মোঃ আলমগীর, রিপন, স্বাস্থ্য সহকারী শাহিনা বেগম, নক্সাকার ইমরুল কায়েছ, সার্ভেয়ার নাজির আহমেদ, হিসাব সহকারী মাহমুদুল হাসান সহ অন্যান্য কর্মচারীগণ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.