মঙ্গলবার, এপ্রিল ২০
Shadow

অভিযোগ নেই, রাজনীতিতে এরকম হবেই: আইভী

নিজস্ব প্রতিবেদক  :

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াত্ আইভী বলেছেন, ‘নারায়ণগঞ্জ শহরকে শান্তিময় হতেই হবে। এ বিষয়ে আমাকে সার্বিক সহযোগিতা করবেন আমাদের সবার অভিভাবক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমার কোনো অভিযোগ নেই। রাজনীতিতে এরকম হবেই।’

সশস্ত্র হামলায় আহত নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াত্ আইভী সুস্থ হয়ে মঙ্গলবার সকালে ল্যাব এইড হাসপাতাল থেকে নারায়ণগঞ্জের উদ্দেশে রওনা হওয়ার সময় সাংবাদিকদের এ কথা বলেন। ৫ দিন চিকিত্সা নেয়ার পর তাকে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়। পরে নারায়ণগঞ্জে ফিরে যান মেয়র আইভী।

নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা আলী আহমেদ চুনকার মেয়ে সেলিনা হায়াত্ আইভী বলেন, ‘আমি রাজনৈতিক প্রতিহিংসায় বিশ্বাসী না। আমি জানি এই কয়েক দিনে অনেক কিছু হয়েছে। আমার সঙ্গে রাজনৈতিক ও পারিবারিক কোনো বিরোধ নাই। বিরোধ যদি থেকে থাকে সেটা আদর্শগত, নীতিগত। কিন্তু সেখানেও আমি নমনীয়, কারণ নগরবাসীর উন্নয়ন আমি চাই।’

সেলিনা হায়াত্ আইভী বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জ সিটির মেয়র আমি। আমার সিটির লিডার আমি, আমার কথায় নারায়ণগঞ্জ সিটি চলবে। কারণ নগর ও নারায়ণগঞ্জবাসীর দায়িত্ব আমার, অন্য কারও নয়। নারায়ণগঞ্জ সিটির ভেতরের কোন সিদ্ধান্ত নিয়ে বাইরে কেউ কথা বললে মেনে নেয়া হবে না। সিটির সব সিদ্ধান্ত নেয়ার এখতিয়ার একমাত্র নারায়ণগঞ্জবাসীর। কেউ এখতিয়ার বহির্ভূতভাবে এটা নিয়ে কমেন্ট করবে- সেটা আমার নগরবাসী মেনে নেবে না। অতীতে মেনে নেয়নি, ভবিষ্যতেও নেবে না। আমার নগর কীভাবে চলবে সে সিদ্ধান্ত আমার নগরবাসী নেবে।’

প্রসঙ্গত, গত ১৮ জানুয়ারি বিকালে নগর ভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় হঠাত্ গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন আইভী। স্থানীয় চিকিত্সকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর তাকে দ্রুত অ্যাম্বুলেন্সে করে পাঠিয়ে দেন ঢাকায়। রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তির পর তাকে রাখা হয় নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ)। পরদিন আইভীকে দেখতে এসে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানান, নারায়ণগঞ্জের মেয়র আইভী মাইনর স্ট্রোক করেছিলেন। দুই দিন পর্যবেক্ষণ শেষে গত ২০ জানুয়ারি রাত আটটার দিকে মেয়র সেলিনা হায়াত্ আইভীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়।

গত ২৫ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জের ফুটপাত থেকে হকারদেরকে উচ্ছেদ করে সিটি করপোরেশন এবং পুলিশ। এ নিয়ে গত ১৬ জানুয়ারি রূপ নেয় সংঘর্ষ। আহত হন আইভীসহ ৫০ জনেরও বেশি।