বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৫
Shadow

আন্তর্জাতিক গণ-আদালতে দোষী সাব্যস্ত মিয়ানমার সরকার

প্রাইম আন্তর্জাতিক :

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সংখ্যালঘু মুসলিম রোহিঙ্গাদের গণহত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে রোমভিত্তিক আন্তর্জাতিক গণ-আদালতে দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন দেশটির স্টেট কাউন্সিলর অং সান সুচি এবং সেনা প্রধানসহ বাহিনীর বেশ কয়েকজন সদস্য।আজ শুক্রবার আন্তর্জাতিক অপরাধ তদন্তে যুক্ত বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও আইনজীবীদের সমন্বয়ে গঠিত আট সদস্যের বিচারক প্যানেলে এ রায় দেন।

আর এ রায়ের মধ্য দিয়ে গণ-আদালতে সুচিই প্রথম কোনো নোবেলজয়ী, যিনি ব্যতিক্রমী এ আদালতে বিচারের সম্মুখীন ও দোষী সাব্যস্ত হলেন।১৮ সেপ্টেম্বর মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরে পার্মানেন্ট পিপলস ট্রাইব্যুনাল (পিপিটি) নামে ওই বিচারিক প্রক্রিয়া শুরু হয়। পাঁচ দিনের শুনানিতে রোহিঙ্গা ও কাচিন সম্প্রদায়ের লোকজন তাদের বিরুদ্ধে পরিচালিত রাষ্ট্রীয় অপরাধের বর্ণনা দেন। এছাড়া শুনানিতে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যানসহ আন্তর্জাতিক অপরাধ তদন্তে যুক্ত বিশিষ্ট ব্যক্তি ও আইনজীবীরাও অংশ নেন।শুনানিতে রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলিমদের হত্যা ও মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগ সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়েছে বলে দাবি করেন আদালতের মুখ্য কৌঁসুলি দেরিন চেন ও উপ-মুখ্য কৌঁসুলি আজরিল মোহাম্মদ আমিন।আদালতে যুক্তরাষ্ট্রের জর্জ মাসন বিশ্ববিদ্যালয়ের জেনোসাইড স্ট্যাডিজ অ্যান্ড প্রিভেনশনের গবেষক অধ্যাপক গ্রেগরি স্ট্যানটনও জবানবন্দি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, মানবতাবিরোধী অপরাধ ও গণহত্যার দায়ে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী, পুলিশ, অন্যান্য বৌদ্ধ মিলিশিয়া এবং দেশটির বর্তমান বেসামরিক সরকার অভিযুক্ত।

রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে তিনি বলেন, তারা মিয়ানমারের সর্বস্তরে বঞ্চনা ও বৈষম্যের শিকার।ট্রাইব্যুনালে মিয়ানমারে মুসলিম নিপীড়ন বিষয়ে সাক্ষ্যপ্রমাণ উপস্থাপন করা হয়। পরে প্রসিকিউশনের পক্ষ থেকে সমাপনী বক্তব্য শেষে বিবাদী পক্ষ বক্তব্য রাখেন। আর বৃহস্পতিবার দিনভর বিচারকমণ্ডলীর সদস্যরা তাদের বক্তব্য পেশ করেন।পিপিটি মালয়েশীয় শাখার সাংগঠনিক কমিটির সভাপতি চন্দ্র মোজাফফর বলেছেন, পাঁচ দিনের অধিবেশনে বিচারকরা প্রসিকিউশনের যুক্তিতর্ক, বিশেষজ্ঞ সাক্ষীদের মতামত, ভুক্তভোগীদের জবানবন্দি বিচার বিশ্লেষণ করে এ রায় দেন।বেসরকারি উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত আন্তর্জাতিক গণ-আদালতে এই প্রথম শান্তিতে নোবেলজয়ী কোনো ব্যক্তির বিচার হল। ফাস্টপোস্টের প্রতিবেদনে বলা হয়, গণ-আদালতের রায় জেনেভায় জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার কাছে পাঠানো হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.