বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৫
Shadow

খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে নির্বাচনে যাবে না বিএনপি

নিজস্ব প্রতিবেদক  :

দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে বিএনপি কোনো ধরনের নির্বাচনে যাবে না বলে মন্তব্য করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের দেওয়া এক বক্তব্যের জবাবে আজ রোববার বিকেলে রাজধানীর নয়া পল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন রিজভী।

গত শনিবার ফেনী সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘খালেদা জিয়া কারাগারে থাকায় বিএনপি আরো বেশি শক্তিশালী হয়েছে বলে দাবি করেছে তারা। তাহলে কিসের আলোচনা? বিএনপি নির্বাচনে আসবেই, আলোচনার প্রয়োজন নেই। খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখেই বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিতে পারে।’

এর জবাবে রিজভী আহমেদ বলেন, ‘আমি বিএনপির পক্ষ থেকে সুস্পষ্টভাবে বলে দিতে চাই, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া বিএনপির অবিচ্ছেদ্য অংশ। তিনি দলের নেতা-কর্মীদের একমাত্র প্রেরণা। উইথ আউট খালেদা জিয়া, নো ইলেকশন- এটাই এখন জনগণের উচ্চারণ, এটাই জনগণের ভাষা। খালেদা জিয়াকে ব্যতিরেকে কোনো নির্বাচন হবে না। মামলা দিয়ে সাজা দিয়ে হাত-পা বেঁধে চক্রান্তের নির্বাচন করার ষড়যন্ত্র নসাৎ হয়ে যাবে।’

খালেদা জিয়ার রায়ের কপি নিয়ে খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলামের দেওয়া বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, ‘খাদ্যমন্ত্রী কামরুল সাহেব বলেছেন রায়ে পেতে দেরির দায় বিএনপির। উনি তো বলবেনই। কারণ পঁচা গম আমদানি ও চালের বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে আওয়ামী নেতা-কর্মীদের অবৈধভাবে চাল আমদানির সুযোগ দিয়ে চালের মূল্য বাড়িয়ে খাদ্যমন্ত্রী বেসামাল হয়ে গেছেন। এখন তিনি আওয়ামী সরকারের বেসুরো ভাঙা ঢোলের মতো কথা বলে যাচ্ছেন।’

‘আমরা বলতে চাই, নানা ফন্দি-ফিকির করে বেগম জিয়ার জামিনকে আটকিয়ে রাখতে একের পর এক কৌশল তারা চালিয়ে যাচ্ছে। আজো রায়ের কপি পাওয়া যায়নি। এটার জন্য সরকারই দায়ী। প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরে তার কী ডিকটেশন দেবেন, তার কী বক্তব্য- এই ব্যাপারে কী নির্দেশ তা জানার জন্যই রায়ের কপি আটকিয়ে রেখেছে।’

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির এই নেতা অভিযোগ করে বলেন, ‘সারাদেশে আজকে জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি পেশের শান্তিপূর্ণ নিরীহ কর্মসূচিতেও বেশ কয়েকটি জেলায় পুলিশ বাধা দিয়েছে। আমরা শুনেছি পটুয়াখালী, নাটোরে বাধার কথা শুনেছি। গতকাল ব্রাহ্মণবাড়ীয়াতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন বিরোধী দলের কর্মসূচিতে বাধা দেওয়া হচ্ছে না। তাহলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তো একজন দায়িত্বশীল মন্ত্রী। উনার কথার তো প্রতিফলন থাকতে হবে? তাহলে কি উনার ভাবছেন দেশের মানুষ গণ্ডমূর্খ।’

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আহমেদ আজম খান, সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, কেন্দ্রীয় নেতা আবদুস সালাম আজাদ, আসাদুল করিম শাহিন, আবদুল আউয়াল খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।