শুক্রবার, এপ্রিল ২৩
Shadow

শ্রীপুরে চিকিৎসকের ভুলে রোগী মৃত্যু

 

নিজস্ব প্রতিবেদক  :

গাজীপুরের শ্রীপুরের নয়নপুর বাজারের তানিয়া মেডিকেল হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় পারভীন খাতুনের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি ) রাতে পেটে ব্যাথা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলে চিকিৎসকরা তাকে দ্রæত অস্ত্রোপাচার করেন। রাতেই সে মারা যায়।

নিহত পারভীন খাতুন (২১) ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁও উপজেলার চারবাড়িয়া গ্রামের রুবেল মিয়ার স্ত্রী। সে স্বামীসহ শ্রীপুরের কেওয়া পশ্চিম খন্ড গ্রামের শামসুল হকের বাড়ীতে ভাড়া থাকতো।

নিহত স্বজনেরা জানান, দেড় বছর আগে রুবেল মিয়ার সাথে পারভীনের বিয়ে হয়। গত একসপ্তাহ আগে পারভীনের পেটে ব্যাথা দেখা দেয়। এসময় তাঁর মা ছাহেরা খাতুন প্রথমে তাকে মাওনা চৌরাস্তার এক পল্লী চিকিৎসকের কাছে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। পল্লী চিকিৎসক তাকে দেখে মাওনা চৌরাস্তার শাপলা হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানে চিকিৎসকরা তাঁর বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে কিডনীর সমস্যা হয়েছে বলে জানায়। পরে তাঁর স্বজনরা তাকে পুনরায় মাওনা চৌরাস্তার নোভা হাসপাতালে নিয়ে যান। নোভা হাসপাতালের চিকিৎসকরা পারভীন গর্ভবতী বলে ব্যবস্থাপত্র দেয়। এদিকে, কয়েকদিন ধরে পেটে ব্যাথা না কমায় তাঁর স্বামী রুবেল মিয়া তাকে শনিবার সন্ধ্যায় উপজেলার নয়নপুর বাজারে তানিয়া হাসপাতালে নিয়ে যান। তানিয়া হাসপাতলের কর্তব্যরত চিকিৎসক আব্দুস ছালাম জানান, তাঁর এপেনডিসাইটিস হয়েছে বলে দ্রæত অপারেশনের সিদ্ধান্ত নেন। পরে নিজেই অস্ত্রোপাচার শুরু করেন। অস্ত্রোপাচারের পরপরই পারভীনের অবস্থা অবনতি হতে থাকে। এক পর্যায়ে তাঁর শ্বাস কষ্টের সমস্যা দেখা দিলে সে নিস্তেজ হয়ে পড়ে। এসময় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ একটি প্রাইভেটকার ডেকে এনে রোগীকে তুলে দিয়ে দ্রæত ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেন। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, হাসপাতালে আনার পূর্বেই পারভীন মারা গেছে।

নিহতের ভাবী নুপুর আক্তার জানান, তানিয়া হাসপাতালে নেয়ার পরপরই চিকিৎসকরা অপারেশনের তাড়াহুড়ো শুরু করেন। পরে পারভীনকে আমি অপারেশন থিয়েটারের ভেতর পর্যন্ত দিয়ে আসি। সে সময় ওই চিকিৎসক ও একজন সেবিকা ছাড়া আর কেউ ছিল না।

নিহত পারভীন আক্তারের মা ছাহেরা খাতুন জানান, মৃত্যুর পর আমরা তাঁর লাশ বাড়ীতে দাফন করে এসেছি অনেকে বলেছে, অভিযোগ করলে ঝামেলা হবে, লাশ কবর থেকে তুলে কাটা ছেড়া করা হবে। তাছাড়াও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এবিষয়ে আমাদের বাড়াবাড়ি করতে নিষেধ করেছেন।

এব্যাপারে অস্ত্রোপাচারের চিকিৎসক আব্দুস ছালাম বলেন, পারভীনকে মূলত এপেনডিসাইটিস অস্ত্রোপাচার করার পর রোগী সুস্থ ছিল। সে হাটাহাটিও করেছে, পরে রাত দুইটার দিকে তাঁর শ্বাস কষ্ট দেখা দিলে তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়। অস্ত্রোপাচার কক্ষে কারা ছিলেন এর কোন সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

এব্যাপারে গাজীপুর জেলার সিভিল সার্জন মঞ্জুরুল হক জানান, অস্ত্রোপাচার করতে একজন অভিজ্ঞ সার্জন, একজন এনেসথেসিয়া ও একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক থাকার বিধান রয়েছে। পরিবারের পক্ষ একজন চিকিৎসক অস্ত্রোপাচার করেছে বলে যে অভিযোগ করেছে তা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক খোকন মিয়া জানান, চিকিৎসক আব্দুস ছালাম নিজেই একাধারে এনেসথেসিয়া ও সার্জন থাকায় তিনি অস্ত্রোপাচারটি করেছেন। তবে, রাতেই রোগীর অন্যান্য সমস্যা দেয়া দেওয়ায় তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে। মৃত্যুর বিষয়ে কিছুই জানা নেই তাঁর।