শনিবার, এপ্রিল ১৭
Shadow

হজের প্রথম ফ্লাইট ১৪ জুলাই

নিজস্ব প্রতিবেদক  :

চলতি বছর হজে গমনেচ্ছুদের হজ ফ্লাইট শুরু হবে ১৪ জুলাই থেকে। এ উপলক্ষে বৃহস্পতিবার থেকে হজের নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু করেছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ধর্মমন্ত্রী মতিউর রহমান পঙ্গু হাসপাতালের চিকিৎসক শাহ জাওয়াহের জাহান কবীরের হাতে নিবন্ধন ভাউচার তুলে দিয়ে হজযাত্রী নিবন্ধন কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।

ধর্মমন্ত্রী বলেন, হজে প্রতারণা ঠেকাতে সব ধরণের ব্যবস্থা নেবে সরকার। এমনকী হাজিদের যাতে কোনো ধরণের বিড়ম্বনা পোহাতে না হয় সেজন্য শুরু থেকে কাজ করবে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

ধর্মমন্ত্রী আরো বলেন, আগের বছরগুলোতে হজযাত্রীদের তথ্য যাচাইয়ের জন্য পুলিশ ভেরিফিকেশনের বাধ্যবাধকতা ছিল। নতুন হজ নীতিতে এটা বিলুপ্ত করা হয়েছে। নিবন্ধনের পরে কোনো হজযাত্রী প্রতিস্থাপন করা যাবে না। তবে মৃত্যু ও গুরুতর অসুস্থতার কারণে সর্বোচ্চ ৪ শতাংশ হজযাত্রী প্রতিস্থাপনের বিধান রাখা হয়েছে।

এছাড়া এবার ট্রলিব্যাগ হজযাত্রীদের নিজেদের সংগ্রহ এবং হজে যেতে ০৯৬০২৬৬৬৭০৭ নম্বরে ফোন করে নিজের তথ্য জানার অনুরোধ করেছেন মন্ত্রী।

মধ্যস্বত্ত্বভোগী তথাকথিত গ্রুপ লিডার/কাফেলা/দালাল/প্রতিনিধির সঙ্গে হজ সংশ্লিষ্ট আর্থিক লেনদেন থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানিয়ে ধর্মমন্ত্রী বলেন, এদের সঙ্গে লেনদেন করে প্রতারিত হলে হজযাত্রীকেই এর দায়ভার গ্রহণ করতে হবে।

হজ ফ্লাইট নিয়ে কোনো বিপর্যয় এড়াতে কী ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, আমরা আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা করেছি, বিমানের সঙ্গে কথা হয়েছে কোনো অবস্থায় যাতে এ ধরনের বিপর্যয় না ঘটে। ইনশাআল্লাহ হবে না।

ধর্ম সচিব আনিছুর রহমান বলেন, হজ নীতিমালা অনুযায়ী ১১ মার্চ পর্যন্ত হজযাত্রী নিবন্ধন চলবে। তবে প্রয়োজনে আমরা সময় বাড়াতে পারি। চলতি বছর হজ কার্যক্রম পরিচালনার জন্য ইতোমধ্যে ৭৭৪টি হজ এজেন্সি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

তিনি বলেন, থার্ড ক্যারিয়ার রাখার জন্য হাইকোর্টের নির্দেশনা থাকলেও এবার সৌদি আরবের সঙ্গে আমাদের যে চুক্তি হয়েছে সেখানে দুই এয়ারলাইন্সের কথা বলা আছে। তাই এই মুহূর্তে থার্ড ক্যারিয়ারের বিষয়ে চিন্তা নেই।

ধর্ম সচিব আরো বলেন, এবার সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীদের যতটা সম্ভব বেশি ঢাকা থেকে সরাসরি মদিনায় হজ ফ্লাইট নেওয়া যায়। সৌদি আরবও আমাদের এ বিষয়ে কথা দিয়েছে।

চলতি বছরও দুটি প্যাকেজের মাধ্যমে হজ পালনের বিধান রেখে ‘হজ প্যাকেজ, ১৪৩৯ হিজরি/২০১৮ সাল’ গত সোমবার অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। একই সঙ্গে সংশোধিত ‘জাতীয় হজ ও ওমরাহ নীতি ১৪৩৯ (২০১৮)’ অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এবার হজ পালনে প্যাকেজ-১ এ ৩ লাখ ৯৭ হাজার ৯২৯ এবং প্যাকেজ-২ এ ৩ লাখ ৩১ হাজার ৩৫৯ টাকা খরচ করতে হবে। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে চলতি বছরের ২১ আগস্ট (৯ জিলহ্জ) পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হতে পারে।

ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে ইতোমধ্যে জানানো হয়েছে, সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রাক-নিবন্ধিত হজযাত্রীদের মধ্যে ১৬ হাজার ৭৩ ক্রমিক পর্যন্ত নির্বাচিত প্যাকেজের অবশিষ্ট অর্থ (প্রাক-নিবন্ধনের সময় দেয়া ২৮ হাজার টাকা ছাড়া) সোনালী ব্যাংকের যেকোনো শাখায় জমা দিয়ে নিবন্ধন করতে হবে।

প্রাক-নিবন্ধনের সময়ে দেয়া ২৮ হাজার টাকা সমম্বয় করে ২০১৮ সালের হজ প্যাকেজ-১ এর হজযাত্রীদের অবশিষ্ট ৩ লাখ ৬৯ হাজার ৯২৯ টাকা এবং হজ প্যাকেজ-২ এর হজযাত্রীদের ৩ লাখ ৩ হাজার ৩৫৯ টাকা সোনালী ব্যাংকের মতিঝিলে স্থানীয় কার্যালয় শাখার ০০০২৩৩০০৯০৮ (Sale proceeds of Hajj Deposit) অ্যাকাউন্টে জমা দিতে হবে।