বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২৫
Shadow

প্রশাসনে ৪শ’ কর্মকর্তার পদোন্নতি হচ্ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক :

প্রশাসনে দুই স্তরে (অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্মসচিব) পদোন্নতি হচ্ছে। এ দুটো পদের প্রায় ৪শ’ কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেয়া হবে। এর মধ্যে অতিরিক্ত সচিব পদে ১৫০ ও যুগ্মসচিব পদে ২৫০ কর্মকর্তা। আগামী অক্টোবরের দ্বিতীয় সপ্তাহে পদোন্নতির আদেশ জারি হতে পারে। তবে এবার উপসচিব পদে পদোন্নতি হচ্ছে না। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের নির্ভরযোগ্য সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, প্রশাসনের অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্ম সচিব পদে পদোন্নতি দেয়া হচ্ছে। উপসচিব পদে পদোন্নতির প্রস্তুতি থাকলেও তা হচ্ছে না। তবে এই পদে রিভিউতে কিছু কর্মকর্তা উপসচিব হতে পারেন।

অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্মসচিব পদে পদোন্নতির লক্ষ্যে সুপিরিয়র সিলেকশন বোর্ডের (এসএসবি) একাধিক সভা হয়েছে। আরো কয়েকটি সভার মধ্য দিয়ে অক্টোবরের প্রথম সপ্তাহে পদোন্নতির সুপারিশ তালিকা চূড়ান্ত করা হবে। এরপর তালিকাটি প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের জন্য পাঠানো হবে। অক্টোবরের মাঝামাঝিতে ৪শ’ (অতিরিক্ত সচিব ১৫০ ও যুগ্মসচিব ২৫০) কর্মকর্তার ভাগ্য খুলবে।

এ প্রসঙ্গে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. মোজাম্মেল হোসেন খান  বলেন, এবার অতিরিক্ত সচিব ও যুগ্মসচিব পদে পদোন্নতি হবে। আর উপসচিব পদোন্নতি হবে পরে।

এসএসবি বোর্ডের এক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে  জানান, এবার যুগ্ম সচিব পদে ১৩তম ব্যাচ এবং অতিরিক্ত সচিব পদে ১০তম ও নবম ব্যাচ পর্যন্ত কর্মকর্তাদের পদোন্নতি নিয়ে কাজ চলছে।

সূত্র জানায়, দুই পদে চারশ’ কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেয়া হতে পারে। এ জন্য কর্মকর্তাদের পরিচিতি, যোগদানের তারিখ, সিনিয়র স্কেলের তারিখ, বুনিয়াদি ও বিভাগীয় প্রশিক্ষণ, আইন ও বিভাগীয় পরীক্ষায় উত্তীর্ণের তারিখ, শিক্ষাগত যোগ্যতা, এসিআরের নম্বর, এসিআরের বিরূপ মন্তব্য, শৃঙ্খলাসংক্রান্ত প্রতিবেদন, মামলা/শাস্তি ও দুর্নীতিসংক্রান্ত প্রতিবেদনের বিষয়গুলো পর্যালোচনা করা হচ্ছে। এসব নিয়ে এসএসবি ধারাবাহিক বৈঠক করবে। চূড়ান্ত বৈঠকে সিদ্ধান্ত হবে কতজনকে পদোন্নতি দেয়া হবে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের হিসাবে, যুগ্ম সচিবের ২৫০টি স্থায়ী পদের বিপরীতে এ স্তরে কর্মকর্তা আছেন ৮১০ জন। তাদের মধ্যে ওএসডি ১২১ জন। অতিরিক্ত সচিবের ১১১টি স্থায়ী পদের বিপরীতে আছেন ৪৭১ জন। এর মধ্যে ওএসডি ২৭ জন।

সূত্র জানায়, নতুন পদোন্নতির ক্ষেত্রে যুগ্ম সচিব আছেন প্রায় ২০০। এ ছাড়া বিভিন্ন সময়ে পদোন্নতি বঞ্চিতদের একটি দীর্ঘ তালিকা আছে। অতিরিক্ত সচিব আছেন তাও ২০০ এর মতো। দীর্ঘ বঞ্চনার মধ্যে থাকা কিছু কর্মকর্তাও পদোন্নতি পাবেন। যেসব কর্মকর্তার অবসরে যাওয়ার সময় ঘনিয়ে এসেছে তারাও বিশেষ বিবেচনায় পদোন্নতি পাবেন। যাতে চাকরি জীবন শেষে একটা স্বস্তি নিয়ে বাড়ি যেতে পারেন।

এ বিষয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক বলেন, কর্মকর্তাদের পদোন্নতি একটি নিয়মিত কাজ। যোগ্যতা অনুযায়ী পর্যায়ক্রমে প্রশাসনের কর্মকর্তাদের পদোন্নতি দেয়া হয়। তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে বিপুলসংখ্যক কর্মকর্তাকে পদোন্নতি দেয়া হয়েছে।

প্রশাসনে পদোন্নতি বঞ্চিত কর্মকর্তাদের অভিযোগ, পদোন্নতির জন্য নির্দিষ্ট নীতিমালা থাকলেও তা পুরোপুরি মানা হয় না। দলীয়করণের উদাহরণ দিয়ে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে জেলা প্রশাসক থাকা এক কর্মকর্তা বলেন, জেলা প্রশাসক হন সবচেয়ে যোগ্য কর্মকর্তারা। কিন্তু এখন এক সরকারের আমলে জেলা প্রশাসক হলে আরেক সরকার তাদের পদোন্নতি দেয় না। এ জন্য মেধাবী ও যোগ্য কর্মকর্তারা জেলা প্রশাসক হতে চান না।

প্রশাসন বিশ্লেষকদের মতে, মাত্রাতিরিক্ত পদোন্নতি হলে ওএসডির সুযোগ বাড়ে। এ জন্য শূন্যপদের বাইরে পদোন্নতি দেয়া উচিত নয়। পদোন্নতি হওয়া উচিত পদের ভিত্তিতে, যোগ্যতা ও মেধার মাপকাঠিতে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (এপিডি) শেখ ইউসুফ হারুন বলেন, প্রশাসনে যারা পদোন্নতি পাওয়ার যোগ্য, তারাই তা পাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.