শুক্রবার, মে ৭
Shadow

গাজীপুরে গলাকেটে অটোরিকশা চালক হত্যার দায়ে যুবকের মৃত্যুদন্ড

গাজীপুর  প্রতিনিধি :
গাজীপুরে ২০১৩ সালে গলাকেটে ব্যাটারি চালিত এক অটোরিকশা চালককে হত্যার দায়ে এক যুবককে মৃত্যুদন্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।
রোববার সকালে গাজীপুরের জেলা ও দায়রা জজ এ কে এম এনামুল হক ওই রায় প্রদান করেন।
রায়ে একই সঙ্গে সাজাপ্রাপ্ত আসামিকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা ও অন্য একটি ধারায় আরো তিন বছরের সশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে। অভিযোগ প্রমাণীত না হওয়ায় মামলার অপর ৩ জনকে খালাস দিয়েছেন আদালত।
দন্ডপ্রাপ্ত আসামির নাম মো: নাইম ওরফে মহিউদ্দন নাইম (২৪)। সে গাজীপুরের সিটি করপোরেশনের চতর এলাকার আব্দুল গফুরের ছেলে। রায় ঘোষণার সময় সাজাপ্রাপ্ত আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন।
গাজীপুর আদালতের পরিদর্শক মোঃ রবিউল ইসলাম ও আদালত সূত্রে জানা গেছে, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের হাতিয়াব দর্জিপাড়া চুন্নু মোল্লার ছেলে জুলহাস মোল্লা (১৮) ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা চালাতেন। ২০১৩ সালের ২৮ নভেম্বর সকালে ওই অটোরিকশা নিয়ে বাড়ি সে থেকে বের হয়। প্রতিদিনের ন্যায় দুপুরের খাবার খেতে বাড়িতে না এলে এবং মোবাইল ফোন বন্ধ পেয়ে স্বজনরা খোজাখুজি শুরু করে। এক পর্যায়ে রাত সাড়ে ৭টার দিকে হাতিয়াব এলাকার নোয়াইলের টেকের গজারি বনে জুলহাসের গলাকাটা লাশ পাওয়া যায়। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। লোকজনের মাধ্যমে জানতে পেরে নাইমসহ আরো ৩ জন অজ্ঞাতনামা অটোরিকশার যাত্রীকে আসামি করে নিহতের পিতা জয়দেবপুর থানায় মামলা করেন।
জয়দেবপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সাইফুল আলম ও  জেলা গেয়েন্দা পুলিশের এসআই মোহাম্মদ হাসান মামলাটি আংশিক তদন্ত করেন। একপর্যায়ে তদন্তের জন্য মামলার তদন্তভার সিআইডিতে স্থানান্তরিত হয়। পরে দীর্ঘ তদন্ত শেষে নরসিংদী জেলার সিআইডর পরিদর্শক খোন্দকার জাহাঙ্গীর কবীর ওই মামলায় নাইম এবং একই এলাকায় বসবাসকারী হাসান ইমাম ওরফে রাব্বী (২৬), জহিরুল ইসলাম ওরফে ফরহাদ (২৫) ও রায়হান উদ্দিন ওরফে নিরব (২৩) এর বিরুদ্ধে ২০১৬ সালের ১৮ ফেব্রæয়ারি আদালতে চাজর্শীট দাখিল করে।
শুনানী ও স্বাক্ষ্য শেষে নাইমের বিরুদ্ধে ওই দন্ড এবং হাসান ইমাম ওরফে রাব্বী, জহিরুল ইসলাম ওরফে ফরহাদ ও রায়হান উদ্দিন ওরফে নিরবকে খালাসের রায় প্রদান করেন আদালত।