শুক্রবার, জানুয়ারি ২২
Shadow

শারদীয় দুর্গোৎসব আজ ষষ্ঠী

প্রাইম ডেস্ক :

আজ মঙ্গলবার ষষ্ঠীপূজার মধ্য দিয়ে শুরু হচ্ছে শারদীয় দুর্গোৎসব। পাঁচ দিনের এ উৎসব শেষ হবে ৩০ সেপ্টেম্বর শনিবার প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে। হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় এ ধর্মীয় উৎসবকে ঘিরে সারাদেশ এখন আনন্দমুখর। গতকাল পূজামন্ডপগুলোতে দুর্গা দেবীর বোধন হয়েছে। এই বোধনের মাধ্যমে দেবী দুর্গার নিদ্রা ভাঙার জন্য বন্দনা করা হয়। মন্ডপে-মন্দিরে পঞ্চমীতে সায়ংকালে তথা সন্ধ্যায় এই বন্দনা পূজা অনুষ্ঠিত হয়।

পুরাণমতে, রাজা সুরথ প্রথম দেবী দুর্গার আরাধনা শুরু করেন। বসন্তে পূজার আয়োজন করায় দেবীর এ পূজাকে বাসন্তী পূজা বলা হয়। কিন্তু রাবণের হাত থেকে সীতাকে উদ্ধার করতে লংকাযাত্রার আগে শ্রীরামচন্দ্র দেবীর পূজার আয়োজন করেছিলেন শরৎকালের অমাবস্যা তিথিতে, যা শারদীয় দুর্গোৎসব নামে পরিচিত। শরৎকালে দেবীর পূজাকে এ জন্যই হিন্দুমতে অকালবোধনও বলা হয়।

সনাতন বিশ্বাস ও পঞ্জিকামতে, জগতের মঙ্গল কামনায় দেবী দুর্গা এবার নৌকায় চড়ে মর্ত্যলোকে আসবেন, যার ফল শস্যবৃদ্ধি। দেবী স্বর্গালোকে ফিরে যাবেন ঘোড়ায় চড়ে, যার ফল ফসল ও শস্যহানি।

এবার সারাদেশে ৩০ হাজার ৭৭টি মন্ডপে দুর্গাপূজা হচ্ছে বলে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ জানিয়েছে, যা গতবারের চেয়ে ৬৮২টি বেশি। আর ঢাকা মহানগরীতে এবার মন্ডপের সংখ্যা ২৩১টি, যা গত বছরের চেয়ে দুটি বেশি। এবার দুর্গাপূজার ব্যয় হ্রাস করে সেই অর্থ মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মধ্যে বিতরণের ঘোষণা দিয়েছে পূজা উদযাপন পরিষদ।

শারদীয় দুর্গাপূজার প্রথম দিন আজ ষষ্ঠীতে দশভুজা দেবী দুর্গার আমন্ত্রণ ও অধিবাস। ষষ্ঠীতিথিতে সকাল ৯টা ৫৮ মিনিটের মধ্যে দেবীর ষষ্ঠ্যাদি কল্পারম্ভ। সায়ংকালে দেবীর আমন্ত্রণ ও অধিবাসের মধ্য দিয়ে শুরু হবে মূল দুর্গোৎসব। আগামীকাল বুধবার মহাসপ্তমী, বৃহস্পতিবার মহাষ্টমী ও কুমারী পূজা, শুক্রবার মহানবমী এবং শনিবার বিজয়া দশমী। শেষ দিন প্রতিমা বিসর্জনের আগে বিজয়ার শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হবে। পূজা চলাকালে প্রতিদিনই অঞ্জলি, প্রসাদ বিতরণ ও আরতির আয়োজন করা হবে। এ ছাড়া মন্ডপে মন্ডপে আলোকসজ্জা, আরতি প্রতিযোগিতা, স্বেচ্ছায় রক্তদান, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আলোচনা সভা, নাটক, নৃত্যনাট্যসহ বিভিম্ন কর্মসূচির আয়োজন করা হবে।

দুর্গোৎসব উপলক্ষে পৃথক বাণীতে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধীদলীয় নেতা রওশন এরশাদ এবং বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া হিন্দু ধর্মাবলম্বীসহ দেশবাসীকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন।

পৃথক বিবৃতিতে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি মেজর জেনারেল (অব.) সি আর দত্ত বীরউত্তম, ঊষাতন তালুকদার, হিউবার্ট গোমেজ, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট রানা দাশগুপ্ত, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি জয়ন্ত সেন দীপু, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট তাপস কুমার পাল, মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সভাপতি ডি এন চ্যাটার্জি, সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার রায় প্রমুখ হিন্দু সম্প্রদায়সহ দেশবাসীকে দুর্গোৎসবের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশের প্রতিটি পূজামন্ডপের নিরাপত্তা রক্ষায় পুলিশ, আনসার,র্ যাব ও বিডিআর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবেন। এ ছাড়া প্রায় প্রতিটি মন্ডপে স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী দায়িত্ব পালন করবে। ঢাকেশ্বরী মন্দির মেলাঙ্গনে মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির উদ্যোগে কেন্দ্রীয় নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলা হয়েছে।

রাজধানীতে ঢাকেশ্বরী জাতীয় মন্দির পূজামন্ডপে আজ থেকে পূজার পাশাপাশি ভক্তিমূলক সঙ্গীত, দুস্থদের মধ্যে বস্ত্র বিতরণ, মহাপ্রসাদ বিতরণ, আরতি প্রতিযোগিতা ও স্বেচ্ছায় রক্তদান অনুষ্ঠিত হবে। রামকৃষষ্ণ মিশন ও মঠ পূজামন্ডপে মহাষ্টমী ও কুমারী পূজার দিন মহাপ্রসাদ বিতরণ করা হবে। রাজারবাগের বরদেশ্বরী কালীমাতা মন্দির ও শ্মশান কমিটির পূজামন্ডপে পূজার আনুষ্ঠানিকতা ছাড়াও দরিদ্রদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, নৃত্যনাট্য ও নাটক পরিবেশিত হবে। গুলশান-বনানী সার্বজনীন পূজা উদযাপন পরিষদের আয়োজনে বনানী পূজামন্ডপে পাঁচ দিনই বিশেষ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে। মিরপুর কেন্দ্রীয় মন্দির পূজামন্ডপে অনুরূপ আয়োজন থাকছে। জয়কালী রোডের রামসীতা মন্দিরে আলোচনা সভা ও দরিদ্রদের মধ্যে বস্ত্র বিতরণ করা হবে।

এ ছাড়া রমনা কালীমন্দির ও আনন্দময়ী আশ্রম, সিদ্ধেশ্বরী কালীবাড়ী, পুরান ঢাকার অভয়নগর দাস লেনের ভোলানন্দগিরি আশ্রম, রাধিকা বসাক লেন, নবেন্দ্র বসাক লেন, ঢাকেশ্বরীবাড়ী, শাঁখারীবাজারের পাম্নিটোলা, টিকাটুলীর প্রণব মঠ, ঠাটারীবাজার পঞ্চানন শিবমন্দির, সূত্রাপুরের ঋষিপাড়া গৌতম মন্দির, বনগ্রাম তরুণ সংসদ, ওয়ারী সার্বজনীন পূজা কমিটির মন্ডপ, উত্তর মৈশুন্ডী, ফরাশগঞ্জ জমিদারবাড়ী, বিহারীলাল জিও মন্দির ও মতিঝিলের অরুণিমা সংসদ পূজা কমিটির মন্ডপসহ বিভিম্ন মন্দির ও মন্ডপে দুর্গোৎসবের ব্যাপক প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.