অর্থনীতি

হাকিমপুরে দেশের প্রথম লোহার খনি আবিষ্কার

হাকিমপুরে দেশের প্রথম লোহার খনি আবিষ্কার

প্রাইম ডেস্ক : দেশে এ প্রথমবারের মতো দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলার ইসবপুর গ্রামে উন্নত মানের লোহার আকরিকের (ম্যাগনেটাইট) খনি আবিষ্কার করা হয়েছে। খনিটির ব্যাপ্তি ছয় থেকে ১০ বর্গকিলোমিটার পর্যন্ত বিস্তৃত। এখানে সোনার অস্তিত্বের পাশাপাশি কপার, নিকেল ও ক্রোমিয়ামেরও উপস্থিতি রয়েছে। এক হাজার ১৫০ ফুট গভীরতায় চুনাপাথরের সন্ধানও মিলেছে। বাংলাদেশ ভূ-তাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তরের (জিএসবি) কর্মকর্তারা দুই মাস ধরে কূপ খনন করে অধিকতর পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে মঙ্গলবার এ তথ্য নিশ্চিত করেন। হাকিমপুর উপজেলা সদরের হিলি স্থলবন্দর থেকে ১১ কিলোমিটার পূর্বে ইসবপুর গ্রাম। ওই গ্রামের কৃষক ইছাহাক আলীর কাছ থেকে ৫০ শতক জমি চার মাসের জন্য ৪৫ হাজার টাকায় ভাড়া নেয় ভূ-তাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর। এরপর থেকে খনিজ পদার্থের অনুসন্ধানে কূপ খনন শুরু করা হয়। জিএসবির উপপরিচালক (ড্রিলিং ইঞ্জিনিয়ার) মো. মাসুদ রানা বলেন, ‘গত ১৯ এপ
স্বর্ণের দাম কমছে

স্বর্ণের দাম কমছে

প্রাইম ডেস্ক : চার দিনের ব্যবধানে দেশের বাজারে স্বর্ণের দাম কমছে। মঙ্গলবার থেকে স্বর্ণের নতুন দাম কার্যকর হবে। এখন ২২ ক্যারেট স্বর্ণের ভরির দাম হবে ৫০ হাজার ১৫৫ টাকা দাঁড়াবে। আগের চেয়ে ভরিতে দাম কমছে ১ হাজার ১৬৭ টাকা। সোমবার বিকেলে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে স্বর্ণের দাম কমানোর সিদ্ধান্ত জানায়। সর্বশেষ গত শুক্রবার প্রতি ভরি স্বর্ণের দামে ১ হাজার ১৬৭ টাকা বৃদ্ধি করেছিল জুয়েলার্স সমিতি। দর কমায় মঙ্গলবার থেকে প্রতি ভরি (১১ দশমিক ৬৬৪ গ্রাম) ২২ ক্যারেট স্বর্ণ ৫০ হাজার ১৫৫ টাকা, ২১ ক্যারেট ৪৭ হাজার ৮২২ টাকা এবং ১৮ ক্যারেট স্বর্ণ বিক্রি হবে ৪২ হাজার ৮০৭ টাকায়। এ ছাড়া সনাতন পদ্ধতির স্বর্ণের ভরি দাঁড়াবে ২৬ হাজার ৮২৭ টাকা। অনেক দিন পর রুপার দাম কমছে। প্রতি ভরি হবে ৯৩৩ টাকা। সোমবার পর্যন্ত প্রতি ভরি ২২ ক্যারেট স্বর্ণ ৫১ হাজার ৩২২ টাকা, ২১ ক্যারেট ৪৮ হ
সংসদের ইতিহাসে প্রথম বাজেট উত্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী

সংসদের ইতিহাসে প্রথম বাজেট উত্থাপন করলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রাইম ডেস্ক : দেশের সংসদীয় ইতিহাসে একটি অনন্য নজীর সৃষ্টি হলো। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের অসুস্থ্যতার কারণে জাতীয় সংসদে তাঁর পক্ষে বাজেটের বড় অংশই উত্থাপন করেন স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা। সংসদীয় ইতিহাসে প্রধানমন্ত্রীর বাজেট উপস্থাপনায় অংশ গ্রহণের ঘটনা এই প্রথম। বিকাল ৪ টা ১০ থেকে ৪টা ৪০ পর্যন্ত ৩০ মিনিটব্যাপী অবশিষ্ট বাজেট বক্তব্য শেষ করলে সরকার ও বিরোধী দলের সংসদ সদস্যরা দীর্ঘক্ষণ টেবিল চাপড়িয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানান। তবে হাসপাতাল থেকে সরাসরি সংসদে এসে প্রচন্ড অসুস্থ্য অর্থমন্ত্রী আহম মুস্তফা কামাল প্রথম এক ঘন্টা নিজেই বাজেট উপস্থাপন করেন। বৃহস্পতিবার বেলা তিনটায় হলুদ শাড়ী পরা স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সংসদ অধিবেশন শুরু হয়। বাজেট পেশ উপলক্ষে অধিবেশন কক্ষ ছিলো কানায় কানায় পূর্ণ। সংসদ গ্যালারি থেকে ভিআইপি লাউঞ্চ সর্বত্রই ছিল উপচে প
দাম কমছে যেসব পণ্যের

দাম কমছে যেসব পণ্যের

প্রাইম ডেস্ক : ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ : সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের’ শিরোনামে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট পেশ করছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এটি ক্ষমতাসীন সরকারের চলতি মেয়াদের প্রথম এবং দেশের ৪৮তম বাজেট। অর্থমন্ত্রী হিসেবে প্রথমবারের মতো আ হ ম মুস্তফা কামালের দেয়া ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে ভ্যাটের পরিধি যেমন ব্যাপক হারে বিস্তৃত করা হয়েছে, তেমনি নিত্য ব্যবহার্য কিছু পণ্যের ভ্যাট হার কমানো ও কিছুক্ষেত্রে বিভিন্ন শূল্ক ছাড় দেয়া হয়েছে। ফলে এসব পণ্যের দাম কমতে পারে। প্রস্তাবিত বাজেটে যেসব পণ্যের দাম কমতে পারে-দেশে তৈরি ফ্রিজ, ক্যানসারের ওষুধ, দেশে তৈরি লিফট, রফতানিমুখী পোশাক, চামড়াজাত জুতা, তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর সেবা, স্বর্ণ, রড, ইলেকট্রিক মোটর, বিস্কুট ও বেকারি পণ্য, অগ্নিনির্বাপক পণ্য। চলতি অর্থবছরে মূল বাজেটের আকার দাঁড়ায় চার লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি
কী থাকছে স্মার্ট বাজেটে

কী থাকছে স্মার্ট বাজেটে

নিজস্ব প্রতিবেদক : আয়ের লক্ষ্য পূরণে যেমন পিছিয়ে, তেমনি উন্নয়ন ব্যয়েও। প্রত্যাশিত অগ্রগতির জন্য যেসব মেগাপ্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষ্য ছিল চলতি বছরের বাজেটে, সেগুলোর দু-একটি ছাড়া বাকিগুলোর কাঙ্ক্ষিত অগ্রগতি নেই। ব্যাংকিং খাতে ‘লুটপাট’ আর ‘ডাকাতি কারবারে’ সামনের দিনগুলোয় বড় ধরনের আর্থিক সংকটের শঙ্কায় বোদ্ধামহল। এই পরিস্থিতিতে নতুন অর্থমন্ত্রী তার ধকল কাটাতে কী ধরনের পদক্ষেপ নিচ্ছেন তা নিয়ে কৌতূহলের কমতি নেই। কেউ বলছেন, নতুন অর্থবছর, নতুন অর্থমন্ত্রী, জঞ্জাল কিন্তু পুরনো। এটা মোকাবিলা করা তার জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। সেই লক্ষ্যে তিনি কিছু পদক্ষেপের ইতিবাচক ‘মুডে’ আছেন এমনটি বোঝা যায় তার বাজেট বক্তৃতার শিরোনামে। ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ : সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের’ এই স্লোগানকে সামনে রেখেই তিনি এগুচ্ছেন। যদিও তিনি শারীরিকভাবে কিছুটা অসুস্থ, তবু বলছেন তার বাজেট হবে স্মার্ট বাজে
কাঁচাপাট রফতানি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার

কাঁচাপাট রফতানি নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার

প্রাইম ডেস্ক : সরকার কাচা পাট রফতানির ওপর থেকে সব ধরণের নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে। ফলে এখন থেকে সব ধরনের কাঁচাপাট রফতানি করা যাবে। এর আগে আন-কাট, বিটিআর (বাংলা তোশা রেজেকশন) ও বিডব্লিউআর (বাংলা হোয়াইট রেজেকশন) নামের কাঁচাপাট রফতানি বন্ধ করে ২০১৮ সালের ১৮ জানুয়ারি প্রজ্ঞাপন জারি করেছিল সরকার। এরপর থেকেই উল্লিখিত তিন ধরনের কাঁচাপাট রফতানি বন্ধ ছিল। বুধবার পাট মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা সৈকত চন্দ্র হালদার স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। গত ২৯ মে ওই রফতানি বন্ধ সংক্রান্ত আদেশ প্রত্যাহার করে সব ধরনের পাট রফতনি বন্ধের আদেশ স্থগিত সংক্রান্ত পৃথক প্রজ্ঞাপন জারি করেছে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়। পাট আইন-২০১৭-এর ১৩ ধারা নিয়ম অনুযায়ী জারি করা এই প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, এর আগে গত ১৮ জানুয়ারি ২০১৮ এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে আন-কাট, বিটিআর ও বিডব্লিউআর নামের কাঁচাপাটের রফতানি বন্ধ করা
১১ মাসে প্রবৃদ্ধি ১২ শতাংশ এবার লক্ষ্যমাত্রা ছাড়াবে রপ্তানি আয়

১১ মাসে প্রবৃদ্ধি ১২ শতাংশ এবার লক্ষ্যমাত্রা ছাড়াবে রপ্তানি আয়

প্রাইম ডেস্ক : চলতি অর্থবছরের জুলাই থেকে মে মাস পর্যন্ত ৩ হাজার ৭৭৫ কোটি মার্কিন ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছেন বাংলাদেশের উদ্যোক্তারা। গত অর্থবছরে একই সময়ে রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৩ হাজার ৩৭২ কোটি ৮৮ লাখ ডলার। এ হিসাবে অর্থবছরের প্রথম ১১ মাসে রপ্তানি আয় বেড়েছে ৪০২ কোটি ১৮ লাখ ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় রপ্তানি আয় বেড়েছে প্রায় ৩৩ হাজার ৭৭৭ কোটি টাকা। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) সর্বশেষ প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে এসেছে। ইপিবির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মে মাসে বাংলাদেশ থেকে রপ্তানি বেড়েছে ১৪ দশমিক ৭৮ শতাংশ। সব মিলে ১১ মাসে রপ্তানিতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১১ দশমিক ৯২ শতাংশ। এ সময়ের লক্ষ্যমাত্রার চাইতে ৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ আয় বেশি এসেছে। এ অবস্থায় অর্থবছর শেষে রপ্তানিতে ৩ হাজার ৯০০ কোটি ডলার আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা। প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, একক মাস হিসাবে
কৃষকদের কাছ থেকে আরও আড়াই লাখ টন ধান কিনবে সরকার

কৃষকদের কাছ থেকে আরও আড়াই লাখ টন ধান কিনবে সরকার

প্রাইম ডেস্ক : দাম পড়ে যাওয়ার কৃষকদের কাছ থেকে আরও আড়াই লাখ মেট্রিক টন বোরো ধান কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। মঙ্গলবার (১১ জুন) সচিবালয়ে এক তাৎক্ষণিক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার। কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন। খাদ্যমন্ত্রী বলেন, এবার বোরোর ফলন ‘অনেক উদ্বৃত্ত’ হয়ে গেছে। দেশের খাদ্য গুদামগুলোর ধারণ ক্ষমতা ১৯ লাখ ৬০ হাজার মেট্রিক টন। আর এখন গুদামে আছে ১৪ লাখ মেট্রিক টন খাদ্যশষ্য। সোমবার প্রধানমন্ত্রী দিক নির্দেশনা দিয়েছেন, আমরা আরও আড়াই লাখ মেট্রিক টন ধান কৃষকের কাছ থেকে কিনব। এতেও বাজার না উঠলে (ধানের) পরিমাণ আরও বাড়াব, যেন কৃষক নায্যমূল্য পান। এই আড়াই লাখ টনের বাইরে প্রয়োজনে আরও এক বা দুই লাখ মেট্রিক টন ধান কৃষকের কাছ থেকে কেনা হবে বলে জানান কৃষিমন্ত্রী রাজ্জাক। এবছর বোরো মৌসুমে সরকার ১০ লাখ মেট্রিক টন সিদ্ধ চাল, দেড়
বিদ্যুতায়নে অনন্য সাফল্য অর্জন করেছে বাংলাদেশ

বিদ্যুতায়নে অনন্য সাফল্য অর্জন করেছে বাংলাদেশ

প্রাইম ডেস্ক : বিশ্ব ব্যাংকের সম্প্রতি প্রকাশিত 'জ্বালানি অগ্রগতি' প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিদ্যুৎ পরিষেবায় অনন্য সাফল্য অর্জন করেছে বাংলাদেশ। বর্তমান এর হার ৯৩ শতাংশ বলেও উল্লেখ করা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সারাবিশ্বে বিদ্যুতায়নের হার ৮৯ শতাংশে পৌঁছেছে। বিশ্বে মোট বিদ্যুৎ সেবা বঞ্চিত মানুষের সংখ্যা ২০১৬ সালে ১০০ কোটি ও ২০১০ সালে ১২০ কোটি থেকে ২০১৯ সালে তা ৮.৪০ কোটিতে নেমে এসেছে।  বিশ্ব ব্যাংকের সম্প্রতি প্রকাশিত জ্বালানি অগ্রগতি প্রতিবেদন ২০১৯-এ বলা হয়েছে যে, অধিক জনসংখ্যার দেশসমূহের মধ্যে বাংলাদেশ, কেনিয়া, মিয়ানমার ও সুদান বিদ্যুৎ পরিষেবার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি সাফল্য অর্জন করেছে। ২০১০ সাল থেকে প্রতিবছর এসব দেশে অগ্রগতির হার হচ্ছে প্রায় ৩ শতাংশ। তথ্যানুযায়ী, বর্তমানে বাংলাদেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২১ হাজার ৪১৯ মেগাওয়াটে পৌঁছেছে। সংযোগ বেড়ে হয়েছে ৩ দশমিক ৩২ কোটি।
রাশিয়ান অর্থনৈতিক ব্লকে ঢুকছে বাংলাদেশ

রাশিয়ান অর্থনৈতিক ব্লকে ঢুকছে বাংলাদেশ

প্রাইম ডেস্ক : রাশিয়ার ইকনোমিক কমিশনের সঙ্গে বাণিজ্যিক সুবিধা, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিসহ বেশ কয়েকটি সুবিধার নিরিখে সমঝোতা চুক্তি করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। চুক্তিটির নাম হচ্ছে ‘মেমোরেন্ডাম অব কো-অপারেশন বিটুইন দ্য ইউরাশিয়ান ইকোনমিক কমিশন অ্যান্ড দ্য গভর্নমেন্ট অব দ্য পিপল রিপাবলিক অব বাংলাদেশ।’ রাশিয়ার রাজধানী মস্কোতে ৩১ মে এই সমঝোতা স্মারকটি স্বাক্ষরের কথা রয়েছে। এই সমঝোতা স্মারকে ১৮টি খাতে পারস্পরিক সহায়তার কথা বলা হয়েছে। এগুলো হচ্ছে- বাণিজ্য সুবিধা, অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও সামষ্টিক অর্থনীতি পর্যালোচনা, কৌশলগত নীতি, কাস্টমস নীতি ও প্রক্রিয়া, শাকসবজি রপ্তানির বাধা দূর করতে স্যানিটারি এবং ফাইটোস্যানিটারি নির্মূলে সহায়তা, আর্থিক বাজার, যোগাযোগ, জ্বালানি নীতি, কৃষি শিল্প প্রতিযোগিতামূলক নীতি, শিল্প, মেধাস্বত্ব, বাণিজ্য ও সেবা খাতে বিনিয়োগ, ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ, উদ্যোক্তা উন্নয়ন, তথ্য ও