খেলাধুলা

বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স

বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স

প্রাইম খেলাধুলা  : ১৯৯৮ সালে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপ জিতেছিল ফ্রান্স। এরপর তা অধরাই ছিল। রাশিয়া বিশ্বকাপের ফাইনালে ক্রোয়েশিয়াকে ৪-২ গোলে হারিয়ে ফের চ্যাম্পিয়ন হলো ফরাসিরা। আবারো সোনালী ট্রফিতে চুমু আঁকল তারা। অবশ্য হেরে গেলেও সাধুবাদ পাবে ক্রোয়েশিয়া। গোটা টুর্নামেন্টজুড়েই নান্দনিক ফুটবলের পসরা সাজিয়েছে ক্রোয়াটরা। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচেও উপহার দিয়েছে লড়াকু ফুটবল। তবে ফ্রান্সের গতির কাছে পেরে ওঠেনি তারা। শিরোপার লড়াইয়ে মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে নামে ফ্রান্স-ক্রোয়েশিয়া। আক্রমণাত্মক শুরু করে ক্রোয়াটরা। তবে খেলার স্রোতের বিপরীতে এগিয়ে যায় ফ্রান্স। ১৮ মিনিটে ডি বক্সের বাইরে থেকে গ্রিজম্যানের ফ্রি কিকে মানজুকিচের আত্মঘাতী গোলে পিছিয়ে যায় ক্রোয়েশিয়া। পিছিয়ে পড়ে আক্রমণের গতি বাড়িয়েছিল ক্রোয়েশিয়া। ফ্রান্স শিবিরে মুহুর্মহু আক্রমণ হানছিল ক্রোয়াটরা। অবশেষে তাদের প্রচেষ্টা আলোর মুখও দেখে। ২৮ মিনিটে
ইংল্যান্ডকে হারিয়ে বেলজিয়াম তৃতীয়

ইংল্যান্ডকে হারিয়ে বেলজিয়াম তৃতীয়

প্রাইম খেলাধুলা  : সেমিফাইনালে হারের দুঃখ ভুলার আগেই মাঠে নামতে হয়েছিল। দু’দলই সান্ত্বনার জয় পেতে চেয়েছিল। তবে পারল না ইংল্যান্ড। থ্রি-লায়নসদের ২-০ গোলে হারিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপে তৃতীয় হলো বেলজিয়াম।বিশ্বকাপ ইতিহাসে এটিই বেলজিয়ানদের সর্বোচ্চ সাফল্য। এর আগে সেরা ছিল চতুর্থ স্থান। ১৯৮৬ বিশ্বকাপে চতুর্থ হয় তারা। তৃতীয় হওয়ার লড়াইয়ে সেন্ট পিটার্সবার্গে খেলতে নামে ইংল্যান্ড-বেলজিয়াম। ঘড়ির কাঁটা ৫ মিনিট ঘোরার আগেই গোল পেয়ে যায় রেড ডেভিলরা। এতে ইংলিশ ডিফেন্সের ভুলই ছিল মূখ্য। নাসের শ্যাডলির জন্য অনেক বেশি জায়গা ছেড়ে দেয় তারা। তার বাড়ানো বলে শেষ মুহূর্তে পা লাগিয়ে নিশানাভেদ করেন থমাস মিউনিয়ার। পিছিয়ে পড়ে আক্রমণের গতি বাড়ায় ইংল্যান্ড। সমতায়ও ফিরতে পারত থ্রি-লায়নসরা। ২৩ ও ২৪ মিনিটে দারুণ দুটি সুযোগ পায় তারা। তবে তা হেলায় নষ্ট করেন রাহিম স্টার্লিং ও হ্যারি কেন। ৩৫ মিনিটে সুযোগ পায় বেলজিয়াম। তবে হাতের
২৮ বছর পর সেমিফাইনালে ইংল্যান্ড

২৮ বছর পর সেমিফাইনালে ইংল্যান্ড

প্রাইম খেলাধুলা  : কাগজে-কলমে ফেভারিট ছিল ইংল্যান্ড। খেললেও সেরকম। অধিকাংশ সময় বল দখলে রাখল। মুহুর্মুহু আক্রমণে প্রতিপক্ষকে ব্যতিব্যস্ত রাখল। অবশেষে প্রত্যাশিত জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ল। সুইডেনকে ২-০ গোলে হারিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে উঠে গেল থ্রি-লায়নসরা। এ নিয়ে ২৮ বছর ফুটবলের সর্বোচ্চ আসরের সেমিতে খেলার যোগ্যতা অর্জন করল তারা। সেমিফাইনালে উঠার লড়াইয়ে সামারা এরিনায় মুখোমুখি হয় ইংল্যান্ড-সুইডেন। তবে দুই দলের শুরুটা হয় একেবারে ম্যাড়ম্যাড়ে। প্রথম ১৮ মিনিটে প্রতিপক্ষের গোলপোস্ট বরাবর বলার মতো তেমন কোনো শট নিতে পারেনি কোনো দল। ১৯ মিনিটে দুর্দান্ত শট নেন হ্যারি কেন। তবে তা গোলপোস্টের ডানদিক দিয়ে চলে যায়। এরপর আক্রমণের পর আক্রমণ করে ইংল্যান্ড। ফলও আসে হাতেনাতে। ৩০ মিনিটে অ্যাশলে ইয়াংয়ের কর্নার থেকে নিশানাভেদ করেন হ্যারি মাগুইরে। এতে ১-০ গোলে এগিয়ে যায় ১৯৬৬ চ্যাম্পিয়নরা। পরেও ইংলিশ
ব্রাজিলের বিদায়

ব্রাজিলের বিদায়

প্রাইম খেলাধুলা  : ব্রাজিলকে কাঁদিয়ে শেষ চারে ওঠে গেছে বেলজিয়াম। শুক্রবার রাতে কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের ২-১ গোলে হারিয়ে শেষ চার নিশ্চিত করেছে বেলজিয়ানরা। শুক্রবার দিনের প্রথম ম্যাচে ফ্রান্স উরুগুয়েকে হারিয়েছে। তাই এখন ফাইনালে যাওয়ার লড়াইয়ে লড়বে ফ্রান্স ও বেলজিয়াম।  মাত্র ১৩ মিনিটে ফার্নান্দো লুইজ রোজার আত্মঘাতি গোলে পিছিয়ে পড়ে ব্রাজিল। কর্নার থেকে আসা বল তার মাথায় লেগে চলে যায় নিজেদের পোস্টে। আর ৩১ মিনিটে কেভিন ডি ব্রুইন গোল করে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন। পাল্টা আক্রমণ থেকে বল পেয়ে ডি ব্রুয়েইন দুর্দান্তভাবে কাজে লাগান এই সুযোগকে। এই দুই গোলে এগিয়ে থেকেই বেলজিয়াম বিরতিতে যায়। দ্বিতীয়ার্ধে ব্রাজিল গোলের জন্য মরিয়া হয়ে খেলতে থাকে। কিন্তু বেলজিয়াম রক্ষণ জোর দিয়ে খেলায় সেই গোলের দেখা পাচ্ছিলেন না নেইমার-জেসুস-কুটিনহোরা। শেষ পর্যন্ত ৭৬ মিনিটে ব্রাজিলের পক
সেমিফাইনালে ফ্রান্স

সেমিফাইনালে ফ্রান্স

প্রাইম খেলাধুলা  : কাভানির না থাকাটাই তবে কাল হলো! পুরো উরুগুয়ে দলটিই কেমন মুষড়ে পড়েছিল। সুযোগটি দারুণভাবে কাজে লাগিয়েছে ফ্রান্স। নিজনির এই কোয়ার্টার ফাইনাল হওয়ার কথা ছিল জমজমাট। হলো না! একেবারের খেলার আকর্ষণ চলে যায় ম্যাচের ৬১ মিনিটে। বক্সের বাঁ-দিক থেকে ২৫ গজ দূরে থেকেও জোরালো শট নেন গ্রিজম্যান। উরুগুয়ের গোলরক্ষক মুসলেয়ারা বলটি পাঞ্চ করেছিলেন। বল গ্লাভসে লেগে মাথার ওপর দিয়ে জালে প্রবেশ করে। ভারানে এরপর গ্রিজম্যানের এই গোলে সেমিফাইনালের টিকিট নিশ্চিত হয় ফরাসিদের। কোয়ার্টার ফাইনালে ২-০ গোলে জয়ের আত্মবিশ্বাস সঙ্গে রয়েছে। শিরোপা থেকে দুটি ম্যাচ দূরত্বে ফ্রান্স।গ্রিজম্যান একটি গোল করার পাশাপাশি আরেকটি গোলে ভূমিকা রেখেছেন। ২০০৬ সালে নকআউট ম্যাচে এ কৃতিত্ব দেখান প্যাট্রিক ভিয়েরা। গ্রিজম্যান শো বলা চলে। ফ্রান্সের কোনো গলদ চোখে পড়ছে না। নিজনি নভগোরদে প্রথমার্ধ শেষে দুই দলক
নেইমার জাদুতে শেষ আটে ব্রাজিল

নেইমার জাদুতে শেষ আটে ব্রাজিল

প্রাইম খেলাধুলা  : সব সংশয় উড়িয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করল ব্রাজিল। নেইমার ও ফিরিমিনোর অসাধারণ জাদুতে মেক্সিকোর বিপক্ষে হেসেখেলে  ২-০ গোলের জয় তুলে নেয় পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়রা। রাশিয়া বিশ্বকাপের নকআউট পর্ব থেকেই বাদ পড়ে গেছে ফেবারিট আর্জেন্টিনা, স্পেন ও পর্তুগাল। আর বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানি তো গ্রুপ পর্বের বাধাই পেরোতে পারেনি। এ অবস্থায় ব্রাজিলের ম্যাচের  দিকে তাকিয়ে ছিল গোটা বিশ্ব। সংশয় ছিল, ব্রাজিল পারবে তো?  কিন্ত সেই সংশয় যেন তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিলেন হেক্সা মিশনের স্বপ্ন নিয়ে রাশিয়ায় আসা নেইমার-ফিরিমিনোরা। এ ম্যাচে শুরু থেকেই দারুণ ছন্দে ছিল ব্রাজিলীয়রা। তবে  আক্রমণের পসরা  সাজিয়েও গোল পাচ্ছিল না ব্রাজিল। প্রথমার্ধের খেলা গোলশূন্য অবস্থায় শেষ হয়। তবে দ্বিতীয়ার্ধে নেইমারের দারুণ গোলে এগিয়ে যায় ব্রাজিল। নেইমার ৫১ মিনিটের মাথায় মেক্সিক
ইতিহাস বলছে জিতবে ব্রাজিল

ইতিহাস বলছে জিতবে ব্রাজিল

প্রাইম খেলাধুলা  : ভানুমতির খেল’ দেখাচ্ছে রাশিয়া বিশ্বকাপ। গ্রুপ পর্বে যেমন তেমন,নকআউটে এসে রঙ বদলাচ্ছে বিশ্ব ফুটবল আসরের। শুরু হয়েছে লাতিন আমেরিকার দেশ আর্জেন্টিনা দিয়ে। এরপর পর্তুগাল, আর গতকালের নাটকের সমাপ্তি হয়েছে ২০১০ সালের চ্যাম্পিয়ন স্পেনকে দিয়ে। তবে শেষ হয়নি নাটকের মূল প্রতিপাদ্য। এখন টাইমলাইনে রয়েছে ব্রাজিল,ইংল্যান্ড ও বেলজিয়ামের মতো দলগুলো।আজ  রাশিয়া বিশ্বকাপের নকআউট পর্বে মাঠে নামছে ব্রাজিল ও মেক্সিকো।  তবে মাঠে নামার আগে খুবই সর্তক ব্রাজিল। যদিও মেসিদের মতো খুড়িয়ে খুড়িয়ে শেষ ষোলোর টিকিট নিতে হয়নি নেইমারদের। তবু অসতর্ক হয়ে ফুটবলের বিশ্ব আসর থেকে ছিটকে পড়তে চান না কোচ তিতে। ঘরের মাঠে ২০১৪ সালের বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বে মেক্সিকোর সঙ্গে ড্র করে ব্রাজিল। মেক্সিকান গোলরক্ষক গিলের্মো ওচোয়া একাই রুখে দিয়েছিলেন ব্রাজিল দলকে। সেই ওচোয়া এখনও আছেন দলে। পারবেন কি আবার ব্রাজিল
রুদ্ধশ্বাস টাইব্রেকারে স্পেনের বিদায়, কোয়ার্টারে রাশিয়া

রুদ্ধশ্বাস টাইব্রেকারে স্পেনের বিদায়, কোয়ার্টারে রাশিয়া

প্রাইম খেলাধুলা  : রাশিয়া বিশ্বকাপের নকআউট পর্বের দ্বিতীয় দিনে স্পেন-রাশিয়ার ম্যাচ নিষ্পত্তি  হলো টাইব্রেকারে। রুদ্ধশ্বাস টাইব্রেকারে ৪-৩ গোলে জিতে কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে গেছে স্বাগতিক রাশিয়া, আর বিদায়ঘণ্টা বেজেছে ২০১০ সালের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন  স্পেনের। লুঝনিকিতে নির্ধারিত ৯০ মিনিটের ১-১ গোলের সমতা হওয়ায় অতিরিক্ত ৩০ মিনিট দেন রেফারি। কিন্তু অতিরিক্ত ৩০ মিনিটে কোনো গোল না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে। নকআউট পর্বের প্রথম ২ ম্যাচে নির্ধারিত ৯০ মিনিটের মধ্যেই ফলাফল নির্ধারিত হলেও আজ দিনের প্রথম খেলায় ব্যতিক্রম ঘটে।  শুরুতে পিছিয়ে গিয়েও বিরতিতে যাওয়ার ৫ মিনিট আগে পেনাল্টি থেকে গোল করে সমতায় ফেরে রাশিয়া। ম্যাচের ৪১ মিনিটের মাথায় পেনাল্টি থেকে গোল করেন আর্তেম ডিজুবা। ডিজুবার গোলে ১-১ এ সমতা রেখে বিরতিতে যায় দুদল । এর আগে ম্যাচের শুরুতেই নিজেদের জালে বল জড়িয়ে পিছিয়ে যায় স্বাগতিক রাশিয়া
ব্রাজিলের জন্য সুসংবাদ

ব্রাজিলের জন্য সুসংবাদ

প্রাইম খেলাধুলা  : কোচের মাথায় প্রত্যেক খেলোয়াড়কে নিয়ে আলাদা আলাদা পরিকল্পনা থাকে। হঠাৎ করে কোনো খেলোয়াড় ইনজুরিতে পড়লে বিপাকে পড়তে হয় কোচদের। তখন বিকল্প চিন্তা ও পরিকল্পনা নিয়ে আগাতে হয়। ব্রাজিলের রাইট ব্যাক দানিলো, উইঙ্গার ডগলাস কস্তা ও লেফট ব্যাক মার্সেলো ইনজুরিতে পড়ে ব্রাজিলের কোচ তিতের কপালে ভাজ ফেলে দেন। তবে ব্রাজিলের জন্য সুসংবাদ অপেক্ষা করছে। ইনজুরি থেকে সেরে উঠেছেন দানিলো। তিনি মেক্সিকোর বিপক্ষে খেলতে পারবেন। অন্যদিকে মার্সেলোও আগের চেয়ে ভালো বোধ করছেন। কোচ চাইলে মেক্সিকোর বিপক্ষে তিনিও খেলতে পারবেন। অন্যদিকে ডগলাস কস্তাও প্রত্যাশার চেয়ে দ্রুত সেরে উঠছেন। সোমবার খেলতে না পারলেও কোয়ার্টার ফাইনালের আগেই পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠবেন তিনি। ব্রাজিল দলের টিম ডাক্তার রদ্রিগো লাসমার দানিলোর বিষয়ে বলেন, ‘দানিলো খেলার জন্য প্রস্তুত। সে আজ অনুশীলন করেছে। মেক্সিকোর বিপক্ষে কোচ তাকে খেলা
আর্জেন্টিনার বিদায়, কোয়ার্টারে ফ্রান্স

আর্জেন্টিনার বিদায়, কোয়ার্টারে ফ্রান্স

প্রাইম খেলাধুলা  : নকআউটপর্বের প্রথম ম্যাচেই বিদায় নিতে হলো দুইবারের সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনাকে। ১৯৯৮ সালের বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়নদের কাছে ৪-৩ গোলে হেরে বাড়ির পথ ধরতে হচ্ছে সাম্পাউরিলর শিষ্যদের। শনিবার রাত আটটায় (বাংলাদেশ সময়) খেলা শুরুর হওয়ার পর ১৩ মিনিটে পেনাল্টি পায় ফ্রান্স। ফরাসি স্ট্রাইকার কিলিয়ান এমবাপ্পেকে ফাউল করায় পেনাল্টি পায় তারা। পেনাল্টিকে গোল করে ফ্রান্সকে এক গোলে এগিয়ে নেন অ্যন্টনিও গ্রিজম্যান। এরপর ৪১ মিনিটে দুরপাল্লার এক দৃষ্টিনন্দন শটে গোল দিয়ে আর্জেন্টিনাকে সমতায় ফেরান ডি মারিয়া। সমতা নিয়ে বিরতিতে যায় দুদল। বিরতি শেষে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ৪৮ মিনিটে আর্জেন্টিনাকে এগিয়ে নেন গ্যাব্রিয়েল মেরাকাডো। তবে এই এগিয়ে যাওয়া ধরে রাখতে পারেনি আর্জেন্টিনা। পরে ৫৭ মিনিটে পাভার্ডের গোলে সমতায় ফিরে ফ্রান্স। এরপর ৬৪ ও ৬৮ মিনিটে জোড়া গোল করেন কিলিয়ান এমবাপে। যোগ করা