লাইফস্টাইল

টিভি-মোবাইলে আসক্তিতে সন্তানের যেসব ক্ষতি

টিভি-মোবাইলে আসক্তিতে সন্তানের যেসব ক্ষতি

প্রাইম ডেস্ক : সন্তানের প্রতি সবসময় যত্নশীল হতে হবে। কারণ শৈশব থেকে তার সব ধরনের বাড়তি যত্ন প্রয়োজন। এ ছাড়া সন্তান কি করছে তার প্রতি খেয়াল রাখা প্রয়োজন। অনেক শিশু আছে স্কুল ছাড়া খুব একটা ঘরের বাইরে বের হয় না। এ ছাড়া পড়া শেষ হলে ঘরে বসে সারাদিন টিভি দেখে। বাইরে খেলতে যায় না। এতে শিশুর মানসিক বিকাশ চরমভাবে ব্যাহত হয়। শিশুর খেলাধুলা যেমন প্রয়োজন, তেমনি তাকে বাইরে ঘুরতে নেয়া প্রয়োজন। একাধিক পরিসংখ্যান বলছে, শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের ৮০ শতাংশই বিভিন্ন কারণে শরীরচর্চা বিমুখ। এসব কারণে আপনার সন্তানের শরীর, মনের বিকাশে বাধা পড়তে পারে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (হু) রিপোর্ট বলছে, শিশুদের শরীর ও মনের বিকাশের ক্ষেত্রে অন্যতম বাধা হলো তাদের শরীরচর্চা না করা। সমীক্ষাটি বলছে, ১৪৬ দেশের শিশুদের মধ্যে দেখা গেছে– মাত্র চারটি দেশ ছাড়া আর সব দেশেই মেয়েশিশুর চেয়ে ছেলেশিশুরা বেশি সক্রিয়। সাম্প্র
ধনেপাতার অসাধারণ ৮ গুণ

ধনেপাতার অসাধারণ ৮ গুণ

নিজস্ব প্রতিবেদক : নিরামিষভোজী বা আমিষাশী যে কেউ মসলা হিসেবে ধনেপাতা খেতে পারেন। কারণ এই ধনেপাতায় রয়েছে অনেক ঔষধি গুণ। ডাল, তরকারি, মাছ, মুড়ি মাখা, আলুকাবলি, ফুচকা– সর্বত্রই এর ব্যবহার হয়ে থাকে। স্বাদ ও স্বাস্থ্যগুণে প্রতিদিন মসলার ব্যবহারে ধনেপাতা অন্যতম। আসুন জেনে নিই ধনেপাতার ঔষধি গুণ- ১. ধনেপাতা শরীরের ক্ষতিকারক কোলেস্টেরলকে কমিয়ে উপকারী কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি করে। যকৃতকে সুস্থ রাখতে এই পাতার জুড়ি নেই। ২. ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের জন্য ধনেপাতা অত্যন্ত উপকারী। ইনসুলিনের ভারসাম্য বজায় রাখে এবং রক্তে শর্করা নিয়ন্ত্রণ করে ধনেপাতা। ৩. লিভার বা যকৃতকে সুস্থ রাখতে ধনেপাতা ভেষজ উপাদান হিসেবে কাজ করে। ৫. ধনেপাতার মধ্যে রয়েছে আয়রন। তাই রক্তস্বল্পতা রোধে খেতে পারেন ধনেপাতা। ৬. ধনেপাতার মধ্যে অ্যান্টিসেপটিক উপাদান থাকায় তা শরীরে টক্সিন দূর করে। এর অ্যান্টিফাঙ্গাল এবং অ্যান্
ধূমপায়ীরা অতিমাত্রায় শারীরিক যন্ত্রণায় ভোগেন: নতুন গবেষণা

ধূমপায়ীরা অতিমাত্রায় শারীরিক যন্ত্রণায় ভোগেন: নতুন গবেষণা

প্রাইম ডেস্ক : ধূমপায়ীদের জন্য আরও দুঃসংবাদ নিয়ে এলেন বিজ্ঞানীরা। নতুন গবেষণায় দেখা গেছে, ধূমপায়ীরা অতিমাত্রায় শারীরিক যন্ত্রণায় ভোগেন অধূমপায়ীদের তুলনায়। যুক্তরাষ্ট্রের গবেষণা প্রতিষ্ঠান ইউসিএলের জরিপে এই তথ্য উঠে এসেছে। ২০০৯ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যে বিবিসির একটি অনলাইন জরিপে অংশ নেয়া লোকজনের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে গবেষণাটি করা হয়েছে। জরিপে ২ লাখ ২০ হাজার মানুষ অংশ নেন। গবেষণায় জানা যায়, যারা ধূমপান করেন, এমনকি যারা আগে ধূমপান করতেন এবং এখন ছেড়ে দিয়েছেন, তারাও অধূমপায়ীদের চেয়ে বেশি শারীরিক যন্ত্রণা ভোগ করেন। গবেষণায় অংশ নেয়া লোকজনকে তিন ভাগে ভাগ করা হয়েছে- ১. কখনও নিয়মিত ধূমপান করেননি ২. একসময় নিয়মিত ধূমপান করতেন ৩. বর্তমানে নিয়মিত ধূমপান করেন। এই তিন শ্রেণির লোকজনের শারীরিক যন্ত্রণার পরিমাণ সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয় এবং পরে তাদের উত্তরের ভিত্তিতে
যেভাবে এলো ইংরেজি নববর্ষ

যেভাবে এলো ইংরেজি নববর্ষ

প্রাইম ডেস্ক : রাত পোহালেই ২০১৯ কে বিদায় জানিয়ে আসবে নতুন বছর ২০২০। ১ জানুয়ারি ইংরেজি নববর্ষ, আজ যা সাড়ম্বরে পালিত হয়ে থাকে, দুই হাজার বছর আগেও কিন্তু এমনটি ছিল না। এমনকি দিন-তারিখ বছরও। ফিরে দেখা যায় সেসব ইতিহাস। ইংরেজি নববর্ষের ইতিহাস আধুনিক গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার ও জুলিয়ান ক্যালেন্ডারে জানুয়ারির ১ তারিখ থেকে শুরু হয় নতুন বছর। তবে ইংরেজি নতুন বছর উদযাপনের ধারণাটি আসে খ্রিষ্টপূর্ব ২০০০ অব্দে। তখন মেসোপটেমিয় সভ্যতার (বর্তমান ইরাক) লোকেরা নতুন বছর উদযাপন শুরু করে। তারা তাদের নিজস্ব গণনা বছরের প্রথম দিন নববর্ষ উদযাপন করতো। তবে রোমে নতুন বছর পালনের প্রচলন শুরু হয় খ্রিষ্টপূর্ব ১৫৩ সালে। পরে খ্রিষ্টপূর্ব ৪৬ অব্দে সম্রাট জুলিয়াস সিজার একটি নতুন বর্ষপঞ্জিকার প্রচলন করেন। যা জুলিয়ান ক্যালেন্ডার নামে পরিচিত। রোমে জুলিয়ান ক্যালেন্ডারের অন্তর্গত বছরের প্রথম দিনটি জানুস দেবতার উদ্দেশ্যে
খেজুরের গুড় চেনার ৫ উপায়

খেজুরের গুড় চেনার ৫ উপায়

প্রাইম ডেস্ক : পৌষ মাসে ঘরে ঘরে শুরু হয় পিঠা-পুলির উৎসব। এসব পিঠা বানাতে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হচ্ছে খেজুরের খাঁটি গুড়। খেজুরের গুড়ের ঘ্রাণ পিঠার স্বাদ বাড়ায়। তবে খাঁটি গুড়ের পাশাপাশি ভেজাল গুড়ও রয়েছে বাজারে। তাই খেজুরের খাঁটি গুড় চেনা খুবই প্রয়োজন। খাঁটি খেজুরের গুড় দিয়ে পিঠা বানালে খাবারের স্বাদ ও গন্ধ থাকে অটুট। তবে গুড়ে আদৌ কোনো ভেজাল আছে কিনা তা সহজেই বোঝা যায় কিছু কৌশল মেনে চললেই। আসুন জেনে নিই কীভাবে চিনবেন খেজুরের খাঁটি গুড়- ১. কেনার সময় একটু গুড় ভেঙে মুখে দিয়ে দেখুন। জিভে নোনতা স্বাদ লাগলে বুঝবেন এই গুড় খাঁটি নয়। ২. গুড় কেনার সময় গুড়ের ধারটা দুই আঙুল দিয়ে চেপে দেখবেন। যদি নরম লাগে, বুঝবেন গুড়টি বেশ ভালো মানের। ধার কঠিন হলে গুড় না কেনাই বুদ্ধিমানের কাজ। ৩. যদি গুড় একটু হালকা তিতা স্বাদের হয়, তবে বুঝতে হবে গুড় বহু ক্ষণ ধরে জ্বাল দেয়া হয়েছে। তাই একটু তিতকুটে স্
সন্তান মানুষ করার শিল্পকলা

সন্তান মানুষ করার শিল্পকলা

প্রাইম ডেস্ক : যখনই কোনো সন্তানের জন্ম হয়, বেশির ভাগ লোক এটা ধরে নেন যে, তখনই তাদের শিক্ষক হওয়ার সময় এসে গেছে। যখন আপনার বাড়িতে একটি শিশুর আগমন ঘটে, তখন সেটা শিক্ষক হওয়ার সময় নয়, এটা শেখবার সময়, কারণ আপনি যদি আপনার নিজের দিকে তাকিয়ে দেখেন এবং সন্তানের দিকে দেখেন, দেখবেন আপনার সন্তান অনেক বেশি আনন্দময়, তাই না? তাই এটা আপনার তাদের কাছে জীবনের শিক্ষা নেওয়ার সময়, উলটোটা নয়। একমাত্র জিনিস যেটা আপনি নিজের সন্তানকে শেখাতে পারেন, সেটা হলো—কীভাবে জীবনটা টিকিয়ে রাখতে হবে। শুধু এটুকুই আপনার করা প্রয়োজন; কিন্তু স্বয়ং জীবনের কথা যখন আসে, একটি শিশু অনুভবের স্তরে নিজে থেকেই জীবনের বিষয়ে অনেক বেশি জানে। সে নিজেই জীবন; এটা সে জানে। এমনকি আপনিও, যদি আপনার মনের ওপর যেসব প্রভাবগুলো চাপিয়ে দিয়েছেন, সেগুলো সরিয়ে নেন, তাহলে আপনার প্রাণশক্তিও জানে ঠিক কীভাবে ‘থাকা প্রয়োজন’। শুধু আপনার মনটাই জানে না ঠিক কীভাবে
কেন পরকীয়ায় জড়ায় মানুষ?

কেন পরকীয়ায় জড়ায় মানুষ?

প্রাইম ডেস্ক : দেশে পরকীয়ার সংখ্যা দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে। আর এ বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্ককে কেন্দ্র করে সমাজে খুন-খারাবির মতো ঘটনাও ঘটছে। অন্যদিকে, প্রতিবেশী দেশ ভারত পরকীয়াকে দিয়েছে বৈধতা। দেশটির সুপ্রিম কোর্ট বলেছে, স্ত্রী কখনই স্বামীর সম্পত্তি হতে পারে না। আবার কোনো ব্যক্তি যদি বিবাহিত নারীর সঙ্গে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হন, তবে সেটা কোনো অপরাধ নয়। তবে কি এবার পরকীয়ার মাত্রা আরও বৃদ্ধি পাবে? এমন আশঙ্কাই করছেন অনেক ভারতীয়। আর প্রতিবেশীদের দেখাদেখি এ দেশেও যে পরকীয়া বাড়বে না সে আশঙ্কাও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বোল্ডস্কাই জানিয়েছে পরকীয়ায় জড়ানোর কিছু কারণ। চলুন জেনে নেওয়া যাক- বাল্য বিবাহ অল্প বয়সে যাদের বিয়ে হয় তাদের পরকীয়ায় জড়ানোর সম্ভাবনা বেশি থাকে। তারা অনুভব করে যে তারা এই বয়সে জীবন উপভোগ করেনি। ফলে উপভোগের চাওয়া-পাওয়ায় বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্কে লিপ্ত হতে থাকে। বা
শীতে ত্বকের যত্নে ২২ টিপস

শীতে ত্বকের যত্নে ২২ টিপস

প্রাইম ডেস্ক : শীতে আমাদের সবার ত্বক শুষ্ক হয় যার ফলে ত্বক চুলকোয় (itching), চামড়া উঠতে পারে (skin peeling), ত্বক ফাটতে (cracked skin) পারে। এ সব থেকে কালো দাগ হতে পারে এবং ইনফেকশনও হতে পারে। তাই শীতকালে সুস্থ ত্বকের জন্য কিছু নিয়ম মেনে চলা উচিত। শীতে শুষ্ক ত্বক আরও শুষ্ক হতে পারে এবং তৈলাক্ত ত্বক শীতে শুষ্ক হতে পারে। আবার একই ত্বকে দু’ রকমের স্কিন টাইপ অর্থাৎ শুষ্ক এবং তৈলাক্ত, দুটোই হতে পারে। এটাকে আমরা ‘combination skin type’ বলে থাকি। কম্বিনেশন ত্বকে T-zone অর্থাৎ কপাল এবং নাক তৈলাক্ত হয় কিন্তু মুখের বাকি অংশ শুষ্ক হয়। শীতকালে সাধারণত, শুষ্ক (Dry skin) ত্বক এবং ‘combination skin’ ত্বক বেশি দেখা যায় আমাদের দেশে। নিম্ন লিখিত টিপস শীতকালের শুষ্ক ত্বকের জন্য: ১. দীর্ঘ সময় নিয়ে গরম পানি দিয়ে গোসল করা যাবে না। শীতকালে কুসুম গরম পানি দিয়ে শরীর ও ত্বক মুছবেন ও ধুবেন। ধোবার পর পর
আত্মপ্রেমিকরা অন্যদের চেয়ে বেশি সুখী হয়

আত্মপ্রেমিকরা অন্যদের চেয়ে বেশি সুখী হয়

প্রাইম ডেস্ক : আত্মপ্রেমিক বা ‘নার্সিসিস্টদের’ সম্পর্কে সমাজের মানুষের মধ্যে সব সময়ই একধরনের নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি কাজ করে। আত্মকেন্দ্রিক স্বভাবের কারণে তাদের সমালোচনাটাও একটু বেশিই হয়। আত্মপ্রেমিকদের মধ্যে শ্রেষ্ঠত্ববোধ বেশি কাজ করে। তাদের লজ্জাও অন্যদের থেকে কম হয়। এতো এতো সমালোচনার পরও মনোবিজ্ঞানীরা বলছেন, আত্মপ্রেমিক বা নার্সিসিস্টরা অন্যদের চেয়ে তুলনামূলকভাবে বেশি সুখী হয়। কুইন্স ইউনিভার্সিটির বেলফাস্টে চলমান এক গবেষণার ফলাফলে এ কথা বলা হয়েছে। গবেষণায় আরো বলা হয়েছে, এ ধরনের মানুষ সাধারণত মানসিক চাপে কম ভোগে। মনোবিদ ডা. কোস্টাস পাপাজর্জিও বলেন, নার্সিসিজমের প্রতি নেতিবাচকতার কারণে নার্সিসিস্টরা নিজেরা যে সুবিধা ভোগ করে, তা অনেক ক্ষেত্রে ঢাকা পড়ে যেতে পারে। গবেষকেরা বোঝার চেষ্টা করছেন, সামাজিকভাবে বিষাক্ত হলেও আধুনিক সমাজ, রাজনীতি, সামাজিক মাধ্যম ও সেলিব্রেটি সংস্কৃতিতে কেন এই ন
ঠোঁট গোলাপ পাপড়ি করার ঘরোয়া উপায়

ঠোঁট গোলাপ পাপড়ি করার ঘরোয়া উপায়

প্রাইম ডেস্ক : ঝকঝকে মুখে ফাটা ঠোঁট ভীষণভাবে চোখে পড়ে। তাই মুখের মতোই ঠোঁটের যত্ন নেয়া প্রয়োজন। ঠোঁটের যত্ন নিতে আমন্ড অয়েল ব্যবহার করতে পারেন। আমন্ড অয়েল নিয়ে ঠোঁটে মাসাজ করুন। উপকার পাবেন। কীভাবে ব্যবহার করবেন? উপকারণ ৫০ গ্রাম মধু, ২০ গ্রাম বা ৪ চা-চামচ চিনি, ৫ মিলি গোলাপ জল ও ৫ মিলি ভ্যানিলা এসেন্স। কীভাবে বানাবেন সব উপকরণ একসঙ্গে ভালো করে মিশিয়ে নিন। প্রতিদিন একবার ঠোঁটের মরা কোষ তুলতে স্ক্রাবার হিসেবে ব্যবহার করুন।. মধু ত্বকের আর্দ্রতা ধরে রাখে প্রাকৃতিকভাবেই। চিনি মরা কোষ সরিয়ে ঠোঁটকে করে নরম ও মোলায়েম। আর এ দুই উপকরণ একসঙ্গে হলে ঠোঁট গুলাবি আপনা থেকেই! ঠোঁটের কালচে ভাব কমাতে তিন চামচ করে নিচে বলা উপকরণ মিশিয়ে বোতলে ভরে রাখুন রোজের ব্যবহারের জন্য- নারিকেল তেল ও আমন্ড অয়েল। কীভাবে ব্যবহার করবেন লিপ বামের বদলে এই মিশ্রণ সারা দিনে বেশ কয়েকবার