বুধবার, জানুয়ারি ২০
Shadow

সম্পাদকীয়

চলচ্চিত্রে মুক্তিযুদ্ধের গৌরব

চলচ্চিত্রে মুক্তিযুদ্ধের গৌরব

সম্পাদকীয়
মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে প্রাপ্ত মহান স্বাধীনতা বাঙালীর হাজার বছরের গৌরবময় অর্জন। এই ইতিহাস আমাদের শিল্প-সাহিত্য মাধ্যমে নানাভাবে বিধৃত করে যেতে হবে পরবর্তী প্রজন্মের জন্য। সেখান থেকে আগামী দিনের প্রজন্ম পাবেন প্রেরণা, অর্জন করবেন অঙ্গীকার। সার্বিক বিষয়টি উপলব্ধি করেন তারাই যারা নিজের জীবন উৎসর্গ করেছেন দেশসেবায়। নিজের কাজটি সততা ও সৌন্দর্যের সঙ্গে করে গেলেও সেটি এক ধরনের দেশসেবা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহান মুক্তিযুদ্ধ ও বিজয়ের ইতিহাস প্রজন্মান্তরে ছড়িয়ে দিতে বেশি করে মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। সত্যি বলতে কি, এই উপলব্ধি চলচ্চিত্র নির্মাতাদের মধ্যে এমনিই আসার কথা। দেশের বহু মেধাবী চলচ্চিত্র নির্মাতা সেই কাজ করে গেছেন। ২০১৯ সালের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে রবিবার প্রধানমন্ত্রী শিশুদের জন্য চলচ্চিত্র নির্মাণের ওপরও গুরুত্ব...
শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি

সম্পাদকীয়
করোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ মহামারীর সর্বশেষ পরিস্থিতি বিবেচনা করে দেশের সকাল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়িয়ে করা হয়েছে ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত। সার্বিক পরিস্থিতির উন্নতি পরিলক্ষিত হলে ফেব্রুয়ারি থেকে সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হতে পারে। উল্লেখ্য, দেশে ৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার পর ১৭ মার্চ থেকে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে একটানা। ফলে স্বভাবতই বিপুলসংখ্যক শিক্ষার্থী ও অভিভাবক রয়েছেন নিদারুণ দুশ্চিন্তায়। কোমলমতি শিশুসহ প্রাথমিক, মাধ্যমিক, এমনকি উচ্চশিক্ষা কার্যক্রম পর্যন্ত ব্যাহত হচ্ছে। শিক্ষাবর্ষ ও নিয়মিত কার্যক্রম হচ্ছে বিঘ্নিত। কার্যত গৃহবন্দী থাকায় ঘরে বসেও প্রতিদিনের পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হচ্ছে না। এ নিয়ে বিভিন্ন মহলে স্বভাবতই দুশ্চিন্তা-দুর্ভাবনা থাকলেও সকল শ্রেণীর অভিভাবকের অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে, শিক্ষার্থীদের আমরা করোনা সংক্রমণের ...
ভয়ঙ্কর কিশোর গ্যাং

ভয়ঙ্কর কিশোর গ্যাং

সম্পাদকীয়
করোনার মহাদুর্ভোগে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্ব হতবিহ্বল, দিশেহারা। ইউরোপসহ উন্নত বিশ্বে দ্বিতীয় ঢেউ সামলানো ছাড়াও নতুন অন্য সংক্রমণের আভাসে সবাই বিচলিত। তবে নির্দ্বিধায় বলা যায়, বাংলাদেশের অবস্থান খুব বেশি অসহনীয় হয়নি এখনও। আক্রান্তের সংখ্যা ৬ লাখ ছাড়ালেও সুস্থতার দৃশ্য অনেকটাই স্বস্তিদায়ক। থমকে যাওয়া আর্থ-সামাজিক বলয় প্রাসঙ্গিক কার্যক্রমে ইতোমধ্যে সম্পৃক্ত হওয়ার চিত্রে দেশ এখন অনেকটাই শঙ্কামুক্ত। তবে জাতির মেরুদণ্ড শিক্ষা ব্যবস্থাপনার মাঝখানে যে পর্বত প্রমাণ প্রাচীর তৈরি হয়েছে তেমন অবরুদ্ধতার সঙ্কট এখন অবধি কাটানো সম্ভব হয়নি। সেই ১৭ মার্চ থেকে বন্ধ হওয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নতুন বছরেও কবে খুলবে তার কোন নিশানা পাওয়া কঠিন। ফলে বিপাকে পড়েছে অসংখ্য খুদে শিক্ষার্থী এবং উদীয়মান কিশোর-তরুণরা। প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা কার্যক্রম থেকে ক্রমাগত দূরত্বে এই উঠতি বয়সের মূল্যবান সময় কিভাবে কাটছে তাও চিন্তার বিষয়। কার...
গ্রীন সিটি রূপপুর

গ্রীন সিটি রূপপুর

সম্পাদকীয়
দেশের প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুত কেন্দ্র গড়ে তোলা হচ্ছে পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার রূপপুর গ্রামে পদ্মা তীরবর্তী অঞ্চলে। এক হাজার ৬২ একর জমির ওপর করোনা মহামারীর মধ্যেও প্রতিদিন চলছে বিপুল কর্মযজ্ঞ। এই মেগা প্রকল্পে বর্তমানে কাজ করছে আট হাজারের মতো জনবল। যাদের মধ্যে রাশিয়ানসহ কমপক্ষে তিন হাজার বিদেশী দক্ষ জনবল। তাদের জন্য নির্মিত হয়েছে ও হচ্ছে আধুনিক সুযোগ-সুবিধা সংবলিত পরিবেশবান্ধব গ্রীন সিটি। বহুকথিত বালিশকাণ্ড দুর্নীতির কারণে প্রথম দিকে বিতর্কিত হলেও অচিরেই তা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়েছে। প্রধানত রাশিয়ার সহায়তায় নির্মিতব্য দুটো ইউনিট মিলিয়ে ব্যয় ধরা হয়েছে ১২ দশমিক ৬৫ বিলিয়ন ডলার, বাংলাদেশী মুদ্রায় ১ লাখ ১ হাজার ২০০ কোটি টাকা। সরকার আশা করছে, ২০২৩ সালের মাঝামাঝি ১২০০ মেগাওয়াট ক্ষমতার প্রথম ইউনিটের উৎপাদিত বিদ্যুত সঞ্চালন করা সম্ভব হবে জাতীয় গ্রিডে। এর পরের বছর চালু হবে সমান ক্ষমতার দ্বিতীয় ইউনিট।...
চির অম্লান ১০ জানুয়ারি

চির অম্লান ১০ জানুয়ারি

সম্পাদকীয়
‘বঙ্গবন্ধু তুমি ফিরে এলে তোমার স্বাধীন সোনার বাংলায়’- বাহাত্তরের ১০ জানুয়ারি বেতার থেকে বেজে উঠেছিল এই গান। সুদূর পাকিস্তানের কুখ্যাত কারাগারের অন্ধ প্রকোষ্ঠ থেকে বেরিয়ে এলেন তিনি তাঁর প্রিয় জন্মভূমিতে সেই ৫০ বছর আগে। বাঙালী জাতির ইতিহাসে তাই ১০ জানুয়ারি একটি চির স্মরণীয় দিন। ১৯৭২ সালের এই দিনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের কারাগার থেকে ৮ জানুয়ারি মুক্ত হয়ে লন্ডন, দিল্লী হয়ে এই দিনে স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে আসেন। তাঁর আগমনের মধ্য দিয়ে হানাদারমুক্ত দেশে মানুষের শুরু হয়েছিল এক নতুন অভিযাত্রা। বঙ্গবন্ধু ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্তানী সেনাদের হাতে বন্দী হওয়ার আগে বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। মুক্তিযুদ্ধের নয় মাস তাঁকে থাকতে হয় পাকিস্তানের কারাগারের নির্জন প্রকোষ্ঠে। এ সময় প্রতি মুহূর্তে তাঁকে মৃত্যুর প্রহর গুনতে হয়েছে। তবে বাঙালী জাতি বঙ্গবন্ধুর নির্দেশ পালনে বিন...
৩০ লাখ টন চাল উদ্বৃত্ত

৩০ লাখ টন চাল উদ্বৃত্ত

সম্পাদকীয়
বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) বিজ্ঞানী ও গবেষক দল বছর শেষে বড় একটি প্রবল আশা ও আশ্বাসের বাণী শুনিয়েছেন দেশবাসীকে। দেশের কোথাও কোথাও চলতি বছর অতি বৃষ্টিসহ পাঁচ-ছয় দফা বন্যায় ৩৫ জেলার আমনের আবাদ ক্ষতিগ্রস্ত হলেও আপাতত খাদ্য ঘাটতি কিংবা খাদ্য সঙ্কটের আশঙ্কা নেই। বরং দেশের অভ্যন্তরীণ খাদ্য চাহিদা পূরণ করেও আগামী বছর অর্থাৎ, ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত উদ্বৃত্ত থাকবে ৩০ লাখ টন চাল। দেশের ১৪টি কৃষি অঞ্চল জরিপ, মাঠ পর্যায়ের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ, কৃষকের কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যাদি সর্বোপরি উপগ্রহচিত্র ব্যবহার করে তারা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন। অবশ্য এর পেছনে ব্রি-র সঙ্গে জড়িত বিজ্ঞানী ও গবেষক দলের উচ্চফলনশীল ধানের বীজ উদ্ভাবন, খরা ও লবণাক্ত পানি সহিষ্ণু ধান বীজের ব্যবহার ইত্যাদির অবদানও কম নয়। ব্রি জানিয়েছে, চলতি বছর আউশ-আমন-বোরো মিলিয়ে মোট চাল উৎপাদন হবে ৩৭ দশমিক ৪২ মিলিয়ন টন। চাহিদা ও যোগান...
শিশুর প্রযুক্তি আসক্তি

শিশুর প্রযুক্তি আসক্তি

সম্পাদকীয়
করোনা সংক্রমণে গোটা বিশ্বের যে নাকাল অবস্থা তেমন দুঃসময় থেকে বাংলাদেশও কোনভাবেই মুক্ত নয়। সীমিত আকারে অর্থনীতির চাকা চলমান থাকলেও উন্নয়নের অন্য খাতের ওপর পড়েছে অনাকাক্সিক্ষত বিপন্নতা। সবচাইতে নাজুক অবস্থায় জাতির মেরুদণ্ড শিক্ষা কার্যক্রম। সেই ১৭ মার্চ থেকে অবরুদ্ধতার কঠিন জালে আটকে পড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো আজ অবধি বন্ধ। কবে যে শিক্ষাঙ্গনের দরজা খুলবে তাও এক অনিশ্চয়তার আবর্তে। ফলে বিপন্ন অবস্থায় পড়েছে ক্ষুদে ও উদীয়মান শিক্ষার্থীরা। যারা নিয়ম করে প্রতিদিন স্কুলে যেত, শৃঙ্খলার অনুবর্তী হয়ে শ্রেণীপাঠ গ্রহণ করত সম্মানিত শিক্ষকদের তত্ত্বাবধানে। তথ্য-প্রযুুক্তির মাধ্যমে শ্রেণীপাঠে অংশ নিতে গিয়ে তারা অনেকটাই এই বলয়ে নিবিড়ভাবে আসক্ত হয়ে পড়েছে। প্রতিদিনের সময় কাটছে ঘরে বসে। আনন্দ নেই, বিনোদনবিহীন দুঃসহ জীবন শ্রেণী সাথীদের সঙ্গে দেখা-সাক্ষাত ছাড়া কিভাবে কাটছে তাও এক অনাকাক্সিক্ষত মনোকষ্ট। অনলাইনভিত্...
হাসিনা-মোদি বৈঠক

হাসিনা-মোদি বৈঠক

সম্পাদকীয়
বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার সম্পর্ক এখন অতীতের যে কোন সময়ের চেয়ে ভাল। বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত দুই দেশের নেতার বৈঠক থেকে আশাবাদ জেগেছে যে, আগামীতে সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হবে। বাংলাদেশের নেত্রী যথার্থই বলেছেন, সহযোগিতামূলক ঐকমত্যের সুযোগ নিয়ে উভয় দেশই নিজ নিজ অর্থনীতি আরও সুসংহত করতে পারে। সম্পর্কের দিক থেকে প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর শীর্ষ বৈঠকটি অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। চলমান করোনা পরিস্থিতিতে শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদির মধ্যকার বৈঠকটি ভার্চুয়াল হলেও কার্যত দু’দেশের শীর্ষ নেতৃত্বের মধ্যে হৃদ্যের দিক থেকে সামান্যতম ব্যতিক্রম ঘটেনি। শেখ হাসিনা দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতার বিভিন্ন দিক তুলে ধরে মুক্তিযুদ্ধে সহায়তার জন্য ভারত সরকার ও জনগণকে ধন্যবাদ দিয়ে বলেছেন, বাংলাদেশ-ভারতের বন্ধুত্ব ও পারস্পরিক সহযোগিতামূলক সম্পর্ক উত্তরোত্তর আরও দৃঢ় হবে। নরেন্দ্র মোদির কথায়ও...
বঙ্গবন্ধু ইউনেস্কো পুরস্কার

বঙ্গবন্ধু ইউনেস্কো পুরস্কার

সম্পাদকীয়
জাতিসংঘের শিক্ষা, সংস্কৃতি ও বিজ্ঞান বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো এবার ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইন্টারন্যাশনাল প্রাইজ ইন দ্য ফিল্ড অব ক্রিয়েটিভ ইকোনমি’ নামে একটি আন্তর্জাতিক পুরস্কার প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সম্প্রতি ইউনেস্কোর ২১০তম বোর্ডের ভার্চুয়াল সভায় এই সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। প্রতিবছর বিশেষ করে সৃজনশীল অর্থনীতিতে অবদানের জন্য তরুণদের দেয়া হবে এই পুরস্কার। উল্লেখ্য, যেখানে সংস্কৃতিভিত্তিক অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে মানব সমাজের বিকাশ পরিলক্ষিত হয়, তাই সৃজনশীল অর্থনীতি। প্রতি দুই বছর অন্তর দেয়া হবে এই পুরস্কার, যার অর্থমান ৫০ হাজার মার্কিন ডলার। ২০২১ সালে নবেম্বরে অনুষ্ঠেয় ইউনেস্কোর ৪১তম সাধারণ সভায় পুরস্কারটি দেয়া হবে প্রথমবারের মতো। উল্লেখ্য, ইউনেস্কো আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিভিন্ন খ্যাতিমান ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নামে ২৩টি পুরস্কার দিয়ে থাকে। এই প্রথম বাংলাদেশের জাতির পিতার নামে পুরস্কার ...
মহান বিজয় দিবস

মহান বিজয় দিবস

সম্পাদকীয়
আজ ১৬ ডিসেম্বর, মহান বিজয় দিবস। ৪৮ বছর আগে এই দিনে স্বাধীন বাংলা বেতার থেকে প্রচারিত হয়েছিল নয় মাসের যুদ্ধ শেষের গান। সমবেত কণ্ঠে শব্দসৈনিকরা গেয়ে উঠেছিলেন, ‘বিজয় নিশান উড়ছে ওই, বাংলার ঘরে ঘরে, মুক্তির আলো ওই জ্বলছে।’ সেই আলোর ঝর্ণাধারায় প্রজ্বলিত হয়ে উঠেছিল বিশ্ব মানচিত্রে এক নতুন দেশ-বাংলাদেশ। গৌরবের, আনন্দের, অহঙ্কারের, আত্মমর্যাদার ও আত্মোপলব্ধির দিন আজ। বিজয়ের গৌরবে গৌরবান্বিত হওয়ার দিন। দেদীপ্যমান, প্রসন্ন, আলোকিত বিজয় দিবস মানেই বাঙালীর নবজন্ম। বর্বর পাকিস্তানী হানাদার সেনাবাহিনী আর তাদের এ দেশীয় দোসর শান্তি কমিটি, রাজাকার, আলবদর, আলশামস বাহিনীকে চূড়ান্তভাবে পরাজিত করার দিন। জাতি হিসেবে বাঙালীর সহস্র বছরের সাধনা শেষে অর্জিত চূড়ান্ত বিজয়ের দিন। বিশ্বে স্বাধীন জাতি হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার দিন। বিজয়ের এই দিনে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের আত্মত্যাগ ও সম্ভ্রম হারানো মা-বোনদের গভীর শ্রদ্...