সম্পাদকীয়

সময় থাকতে সাবধান

সময় থাকতে সাবধান

চালের দাম গত কয়েক মাস ধরেই চড়া। একই সঙ্গে পেঁয়াজের। আমদানি করেও এই দুটো পণ্যের দাম এখন পর্যন্ত নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না। অবশ্য বাজারে নতুন ধান-চাল ও পেঁয়াজ উঠতে শুরু করেছে। তবে গতি কম। বিরূপ আবহাওয়া, শৈত্যপ্রবাহ ও ঘন কুয়াশায় ক্লোরোফিল কমে যাওয়ায় নষ্ট হচ্ছে বোরো বীজতলা। অন্যদিকে রোদের তাপ ও পরিমাণ কম থাকায় সময়মতো ধান কাটা, শুকানো ও মাড়াই করা যাচ্ছে না। এই ধারা অব্যাহত থাকলে আগামীতে আরও বাড়তে পারে ধান-চালের দাম। সরকার ধান-চালের সংগ্রহ মূল্য বাড়ালেও ক্রয় কেন্দ্রগুলোতে তেমন সাড়া নেই, ধানে আর্দ্রতা বেশি থাকায়। এর সুযোগ নিতে পারেন চাতাল মালিক ও মধ্যস্বত্বভোগীরা। ২০১৭ তে দেশে আকস্মিক পাহাড়ী ঢল ও অতিবৃষ্টিতে হাওড় অঞ্চলে ফসলহানি হয়েছে ব্যাপক। অতিবৃষ্টি ও বন্যা হয়েছে উত্তরাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে। অন্যদিকে ব্যাপক পাহাড়ধস ঘটেছে রাঙ্গামাটিসহ পার্বত্য অঞ্চলে। এর অনিবার্য নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে ধান, চাল,
রাজধানীর বেহাল সড়ক

রাজধানীর বেহাল সড়ক

রাজধানী ঢাকার রাস্তাগুলোর অবস্থা, গণপরিবহনের সঙ্কট, ট্রাফিক আইন ভাঙার সংস্কৃতি ইত্যাদি আন্তঃসম্পর্ক বিষয় নিয়ে প্রচুর প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। বছরভরই এসব সমস্যা রাজধানীবাসীর গলার কাঁটা হয়ে বিরাজ করে। ফলে অবস্থার পরিবর্তনের লক্ষ্যে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য সম্পাদকীয় এবং উপসম্পাদকীয়ও লেখা হয় যথেষ্ট পরিমাণে। বছর শেষ হয়ে আসছে। অথচ পরিস্থিতির উন্নতি না ঘটে, অবনতিই ঘটে চলেছে। সে কারণেই আমাদেরও বাধ্য হয়ে আরেকবার বিরক্তি, উদ্বেগ ও ক্ষোভ প্রকাশ করতে হচ্ছে। পৃথিবীর সকল উন্নত দেশে প্রতিবন্ধীদের হুইল চেয়ার নিয়ে চলাচলের সুব্যবস্থা থাকে। আমাদের দেশের রাজধানীর সড়কগুলোর এমন দশা যে সুস্থ সচল ব্যক্তিও আকস্মিকভাবে চলৎশক্তিহীন হয়ে পড়তে পারেন। তার ঠাঁই হবে হুইল চেয়ারে। ঢাকার প্রধান সড়কগুলোয় অবশ্য এখন আর উন্মুক্ত ম্যানহোল নজরে পড়ে না। অলিগলিতেও অবস্থার উন্নতি হয়েছে। কিন্তু ব্যস্ত সড়কগুলোয় পা রাখলে বোঝা
কিশোরী ফুটবলারদের অভিনন্দন

কিশোরী ফুটবলারদের অভিনন্দন

বাংলাদেশের কিশোরী ফুটবলাররা বেশ কিছুদিন ধরে সুখবর বয়ে আনছে। এবার অনূর্ধ্ব-১৫ কিশোরী ফুটবল দল বয়সভিত্তিক সাফ টুর্নামেন্টে বিজয়ী হয়েছে। কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন, অধিনায়ক মারিয়া মান্ডা এবং পুরো দলকে জাতির অভিনন্দন। বাংলাদেশ প্রতিবেশী শক্তিশালী ভারতকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। এ টুর্নামেন্টে বাংলাদেশের কিশোরীদের অনেক অর্জন। তারা কেবল বেশিরভাগ ম্যাচ ও ফাইনালে জিতেই চ্যাম্পিয়ন হয়নি, তারা এ টুর্নামেন্টে গ্রুপ পর্বেও কোনো ম্যাচে হারেনি, এমনকি বাংলাদেশ দলের জালে পুরো টুর্নামেন্টে একটি গোলও ঢোকেনি। অধিকাংশ ম্যাচে আমাদের দক্ষ কিশোরী গোলরক্ষক মাহমুদাকে অলস সময় কাটাতে হয়েছে। রক্ষণভাগের খেলোয়াড়রা কেবল রক্ষণব্যূহ আগলায়নি, তারা আক্রমণে উঠেছে এবং একাধিক গোলও করেছে। ফাইনালে একমাত্র গোলটিও করেছে রক্ষণভাগের খেলোয়াড় শামসুন্নাহার। বাংলাদেশ দল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পাশাপাশি টুর্নামেন্টের ফেয়ার প্লে ট্রফিও জিতেছে। ফাইনাল
বিজয় দিবসের অঙ্গীকার

বিজয় দিবসের অঙ্গীকার

রাজধানীসহ সারাদেশে বরাবরের মতো এবারও বিজয় দিবস পালিত হয়েছে সাড়ম্বরে। তবে এবার বিজয় দিবসের আনন্দ-উৎসব, হৈ-হল্লা, মাতামাতি, বিজয়োল্লাস, আনন্দ শোভাযাত্রা, মিছিল-সমাবেশ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ রকমারি মেলার আয়োজন যেন ছাড়িয়ে গেছে অতীতের সকল রেকর্ড। বিজয় দিবস উপলক্ষে রাজধানীর রাজপথে নেমেছিল লাখো লাখো মানুষের ঢল। বিশেষ করে শিশু-কিশোর ও তরুণ প্রজন্মের বিজয়োল্লাস ছিল চোখে পড়ার মতো। অনুরূপ লক্ষ্য করা গেছে চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা, রংপুরসহ সব বিভাগীয় শহর-নগরে। জেলা-উপজেলা পর্যায়েও আনন্দ-উল্লাসের কোন ঘাটতি পরিলক্ষিত হয়নি। ঐতিহাসিক ৭ মার্চের রেসকোর্স ময়দানে প্রদত্ত জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর বিশ্বনন্দিত বজ্রভাষণ জাতি এদিন শ্রদ্ধাভরে শুনেছে গণমাধ্যমসহ মাইকের মাধ্যমে। সর্বস্তরের মানুষ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলের স্তবক দিয়ে শ্রদ্ধা জানাতেও কার্পণ্য করেনি। ভাষণটি ইতোমধ্যে ইউনেস্কো কর্তৃক বিশ্বের অন্যতম শ্র
মহান বিজয় দিবস

মহান বিজয় দিবস

আজ ১৬ ডিসেম্বর, মহান বিজয় দিবস। ৪৬ বছর আগে এই দিনে স্বাধীন বাংলা বেতার থেকে প্রচারিত হয়েছিল নয় মাসের যুদ্ধ শেষের গান। সমবেত কণ্ঠে শব্দসৈনিকরা গেয়ে উঠেছিলেন, ‘বিজয় নিশান উড়ছে ওই, বাংলার ঘরে ঘরে, মুক্তির আলো ওই জ্বলছে।’ সেই আলোর ঝর্ণাধারায় প্রজ্বলিত হয়ে উঠেছিল বিশ্ব মানচিত্রে এক নতুন দেশ- বাংলাদেশ। গৌরবের, আনন্দের, অহঙ্কারের, আত্মমর্যাদার ও আত্মোপলব্ধির দিন আজ। বিজয়ের গৌরবে গৌরবান্বিত হওয়ার দিন। দেদীপ্যমান, প্রসন্ন, আলোকিত বিজয় দিবস মানেই বাঙালীর নবজন্মকাল। বর্বর পাকিস্তানী হানাদার সেনাবাহিনী আর তাদের এ দেশীয় দোসর শান্তি কমিটি, রাজাকার, আলবদর, আলশামস বাহিনীকে চূড়ান্তভাবে পরাজিত করার দিন। আর জাতি হিসেবে বাঙালীর সহস্র বছরের সাধনা শেষে অর্জিত চূড়ান্ত বিজয়ের দিন। স্বাধীন জাতি হিসেবে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার দিন। বিজয়ের এই দিনে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের আত্মত্যাগ ও সম্ভ্রম হারানো মা-বোনদের গভীর শ্রদ্ধা
শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস

শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস

আজ শোকার্ত ১৪ ডিসেম্বর। শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস। গভীর শোক ও শ্রদ্ধার সঙ্গে জাতি আজ স্মরণ করছে তার শ্রেষ্ঠ সন্তানদের, যাদের হারিয়েছে স্বাধীনতা সংগ্রামের সূচনালগ্ন থেকে শুরু করে চূড়ান্ত বিজয়ের পূর্ব মুহূর্ত পর্যন্ত। একই সঙ্গে সহমর্মিতা প্রকাশ করছে শহীদ বুদ্ধিজীবী পরিবারের স্বজনদের প্রতি, যারা দীর্ঘ ৪৬ বছর ধরে বয়ে চলেছেন আপনজনকে নির্মমভাবে হারানোর বেদনা ও কষ্ট। এই হত্যাযজ্ঞের মাধ্যমে পাকিস্তানী বাহিনী ও তাদের এদেশীয় দালালরা চেয়েছিল বাঙালী জাতীয়তাবাদ এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা যাতে এদেশে যথাযথভাবে বিকশিত না হয়। যুদ্ধের শুরু থেকেই হানাদার বাহিনী যে হত্যাযজ্ঞের সূচনা করেছিল, একেবারে শেষদিকে এসে পরাজয়ের আগ মুহূর্তে তা রূপ নেয় দেশের শ্রেষ্ঠ সন্তানদের পরিকল্পিত হত্যাকা-ে। হানাদাররা তাদের এদেশীয় দোসর আলবদর, আলশামস ও রাজাকারদের সহযোগিতায় বেছে বেছে হত্যা করেছিল শিক্ষক, লেখক, শিল্পী, সাহিত্যিক, সাংবাদিক
শিশুসাহিত্য

শিশুসাহিত্য

বাংলা শিশু ও কিশোর সাহিত্যের ২০০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বাংলা একাডেমিতে চন্দ্রাবতী একাডেমি আয়োজিত দু’দিনের শিশুসাহিত্য সম্মেলনটি নানা কারণে তাৎপর্যপূর্ণ। উল্লেখ্য, ১৮১৮ সালে ‘দিকদর্শন’ সাময়িকীর মাধ্যমে শুরু হয় বাংলা শিশুসাহিত্যের অভিযাত্রা। এও নতুন করে বলার অবকাশ রাখে না যে, বাংলা শিশুসাহিত্য অত্যন্ত সমৃদ্ধ ও শিল্পগুণে সমাদৃত। অন্য অনেক কিছুর মতো রবীন্দ্রনাথও এক্ষেত্রে সর্বোত্তম উদাহরণ। এর বাইরেও তিন প্রজন্ম ধরে প্রায় অবিসংবাদী রাজত্ব করেছেন রায় চৌধুরী পরিবারের উপেন্দ্রনাথ, সুকুমার, সত্যজিৎ রায় প্রমুখ। তৃতীয় পুরুষ তো বিশ্বব্যাপী চলচ্চিত্র শিল্পেও স্বীকৃত। এর বাইরেও আরও অনেক দিকপাল ও সাহিত্য মহারথী বাংলা শিশু ও কিশোর সাহিত্যকে সমৃদ্ধ করেছেন এবং নিরন্তর করে চলেছেন। সেই প্রেক্ষাপটে চন্দ্রাবতী একাডেমির দ্বিতীয় বছরের অনুষ্ঠানটির আয়োজন। গত বছর চট্টগ্রামে ছিল এই আয়োজনের সূত্রপাত। এবার সারাদেশ থে
রূপবদলের রূপপুর

রূপবদলের রূপপুর

ইতিবাচকভাবে দেশের রূপ বদলে দেবে রূপপুর এমন ভরসায় বুক বেঁধেছে মানুষ। সেই কবে থেকে প্রতীক্ষা; অবশেষে সেই স্বপ্ন পূরণের স্থাপনার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়েছে। পাবনা জেলার ঈশ্বরদীর রূপপুরে দেশের প্রথম পারমাণবিক কেন্দ্রের মূল নির্মাণ কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়েছে বৃহস্পতিবার। উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর ভেতর দিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণের পথে আরও এক ধাপ এগিয়ে গেল বাংলাদেশ। দেশের একক বৃহত্তম প্রকল্প এটি। কেন্দ্রটির মূল পর্যায়ের উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ পারমাণবিক জগতে প্রথম পা রাখল। দেশের সবচেয়ে ব্যয়বহুল এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে নানা জল্পনা-কল্পনা থাকলেও সফলভাবে শেষ হয়েছে এর প্রথম ধাপের কাজ। দুই ইউনিটের এই বিদ্যুত কেন্দ্র থেকে উৎপাদন হবে ২ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুত। ফলে সঙ্গত কারণেই নতুন দিগন্তের সূচনা হিসেবে দেশবাসী দেখছে পরমাণু চুল্লীর ঢালাইয়ের শুরুটাকে। এর ভেতর দিয়ে বাংলাদেশ
পোপ ফ্রান্সিসের ঢাকা সফর

পোপ ফ্রান্সিসের ঢাকা সফর

মিয়ানমারের ওপর কতটা নৈতিক চাপ ফেলবে? বাংলাদেশ সফররত রোমান ক্যাথলিকদের প্রধান ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় বিশ্ব সম্প্রদায়কে বাংলাদেশের পাশে থাকার যে আহ্বান জানিয়েছেন, তার এ আহ্বান রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে মিয়ানমারের ওপর নৈতিক চাপ সৃষ্টি করবে বলে ধারণা করা যায়। তার এ আহ্বান বিশ্ব নেতৃবৃন্দকে রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে ভূমিকা রাখতে বিশেষভাবে উদ্বুদ্ধ করবে, এটাও আশা করা যায়। গত কয়েক মাসে বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেয়ায় বাংলাদেশের ভূয়সী প্রশংসা করেন পোপ ফ্রান্সিস। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের অব্যাহত চাপের মুখে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার ব্যাপারে মিয়ানমার প্রতিশ্রুতি দিলেও তা কতটা রক্ষা করবে, এ সন্দেহ থেকেই যায়। রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরের পরও রোহিঙ্গা আসা বন্ধ না হওয়ার বিষয়টি উদ্বেগজনক। রাখাইন থেকে আসা রোহিঙ্গারা জানিয়েছেন বাংলাদেশে আসার জ
পরমাণু যুগে যাত্রা

পরমাণু যুগে যাত্রা

নতুন এক যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ পাবনার রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দ্বিতীয় পর্যায়- নিউক্লিয়ার রি-অ্যাক্টর বা পারমাণবিক চুল্লি বসানোর কাজ উদ্বোধন করবেন। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদনের উচ্চ মর্যাদাসম্পন্ন এলিট ক্লাবে প্রবেশ করবে। বর্তমানে মাত্র ৩১টি দেশ পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদন তথা নিউক্লিয়ার ক্লাবের সদস্য। বাংলাদেশও সে তালিকায় যুক্ত হবে, এটি আনন্দের বিষয় অবশ্যই। কারণ এর সঙ্গে এক ধরনের মর্যাদার সম্পর্ক জড়িয়ে আছে। তবে আমাদের কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হল, রূপপুরে পারমাণবিক চুল্লি স্থাপনের কাজ সম্পন্ন হলে জাতীয় বিদ্যুৎ গ্রিডে ২ হাজার ৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ যোগ হওয়া। তীব্র বিদ্যুৎ ঘাটতির কারণে দেশের শিল্প-কারখানার উৎপাদন ব্যাহত হওয়ার এ সময়ে এটি একটি স্বস্তির খবর নিঃসন্দেহে। নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে আমাদের এ পর্যায়ে আসতে হয়েছে। বাংলাদে